Templates by BIGtheme NET
আজ- শনিবার, ২৬ সেপ্টেম্বর, ২০২০ :: ১১ আশ্বিন ১৪২৭ :: সময়- ৪ : ৫৯ পুর্বাহ্ন
Home / আলোচিত / চেয়ার কলঙ্কিত না, ভিসির পদমর্যাদা অক্ষুন্ন রাখতে সবার সহযোগিতা চাই

চেয়ার কলঙ্কিত না, ভিসির পদমর্যাদা অক্ষুন্ন রাখতে সবার সহযোগিতা চাই

ফরহাদুজ্জামান ফারুক, স্টাফ রিপোর্টার: তৃতীয় উপাচার্য হিসেবে দায়িত্বভার নিয়ে প্রথম সাংবাদিক সম্মেলনে রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের নতুন ভিসি ড. একেএম নুরুন্নবী বলেছেন, ভিসির পদমর্যাদা অক্ষুন্ন রেখে চেয়ার কলঙ্কিত না করে অতীত থেকে শিক্ষা নিয়ে এই বিশ্ববিদ্যালয়কে আন্তর্জাতিক মানের মডেল বিশ্ববিদ্যালয়ে পরিণত করতে সবার সহযোগিতা চাই। এসময় তিনি আগামী ১৪ মে থেকে বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্লাস চালুরও ঘোষণা দেন।

বুধবার দুপুরে ভিসির অফিস কাম রেসিডেন্সিয়ালে আয়োজিত সাংবাদিক সম্মেলনে তিনি এই ঘোষণা দেন। এসময় তিনি আরও বলেন, বিশ্ববিদ্যালয়ের বর্তমান সংকট কাটিয়ে বিশ্বমানের শিক্ষা প্রতিষ্ঠান হিসেবে গড়ে তুলতে দলমত নির্বিশেষে সকলের সহযোগিতা প্রয়োজন। এসময় তিনি সেশনজট কাটিয়ে ওঠতে ১১ মে সিন্ডিকেট সভার মাধ্যমে আগামী ১৪ মে থেকে বিশ্ববিদ্যালয়ে ক্লাস চালু করার আশাবাদ ব্যক্ত করেন।

গত ৫ মে দ্বিতীয় ভিসি প্রফেসর ড. আব্দুল জলিল মিয়াকে রাষ্ট্রপতির আদেশে অব্যাহতি দিয়ে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের পপুলেশন সাইন্স বিভাগের অধ্যাপক ড. একেএম নুরুন্নবীকে তৃতীয় ভিসি হিসেবে নিয়োগ দেন। ওই দিনই তিনি যোগদান করে সোমবার বিশ্ববিদ্যালয়ে অফিস করেন। গতকাল তিনি সাংবাদিকদের সাথে মুখোমুখি হলেন।

এই বিশ্ববিদ্যালয়ের ২০০৮ সালে ২০ শে অক্টোবর ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে কম্পিউটার সাইন্স বিভাগের প্রফেসর ড. এম লুৎফর রহমানকে প্রথম ভিসি হিসেবে নিয়োগ দিয়ে যাত্রা শুরু হয়েছিল এই বিশ্ববিদ্যালয়ের। এরপর সরকার পরিবর্তন হওয়ার পর রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের বঙ্গবন্ধু পরিষদের সভাপতি প্রফেসর ড. আব্দুল জলিল মিয়াকে নিয়োগ দেন। তার নিয়োগের পর থেকেই তার বিরুদ্ধে বিশ্ববিদ্যালয়ে নিয়োগ বাণিজ্য, দুর্নীতি, অনিয়ম, পীরগঞ্জিকরণ, দলীয়করণ, পারিবারিকীকরণসহ বিভিন্ন অনিয়মর অভিযোগে শিক্ষক শিক্ষার্থী কর্মকর্তা কর্মচারীরা আন্দোলনে নামেন। ভিসি পদ টিকিয়ে রাখতে ছাত্রলীগ দিয়ে আন্দোলনকারীদের মঞ্চ দখল এসিড নিক্ষেপ, সভা সমাবেশ করে আলোচনায় আসেন।

বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরী কমিশন সরেজমিন তদন্তে অনিয়মের প্রমাণ পাওয়ায় সকল ধরনের নিয়োগ স্থগিতের নির্দেশ দেয়। সেই নির্দেশ উপেক্ষা করে ভিসি নিয়োগ অব্যাহত রাখলে আদালতে মামলার প্রেক্ষিতে সেটিও বন্ধ হয়ে যায়। শিক্ষা মন্ত্রণালয় সংক্রান্ত সংসদীয় কমিটিও ড. জলিলের বিরুদ্ধে দুর্নীতির প্রমাণ পাওয়ায় অপসারণের মত দেন। দুদক তার বিরুদ্ধে অনিয়মের তদন্ত করছে। পদ টিকিয়ে রাখার বলি হয়ে বিশ্ববিদ্যালয় দুই দফায় অনির্দিষ্টকালের জন্য বন্ধ হয়ে গেছে। দ্বিতীয় দফা অনির্দিষ্টকালের বন্ধ এখনও চলছে।

সচেতন মহল মনে করছেন, নতুন ভিসিকে সকল বাঁধা কাটিয়ে ক্যাম্পাসে শিক্ষার পরিবেশ ফিরিয়ে আনা এবং বিদ্যমান দুর্নীতি প্রতিরোধে কতটুকু প্রতিরোধ করতে পারবেন সেটিই এখন দেখার বিষয়।

Social Media Sharing

ăn dặm kiểu NhậtResponsive WordPress Themenhà cấp 4 nông thônthời trang trẻ emgiày cao gótshop giày nữdownload wordpress pluginsmẫu biệt thự đẹpepichouseáo sơ mi nữhouse beautiful