Templates by BIGtheme NET
আজ- মঙ্গলবার, ২৯ সেপ্টেম্বর, ২০২০ :: ১৪ আশ্বিন ১৪২৭ :: সময়- ৩ : ৫৯ অপরাহ্ন
Home / টপ নিউজ / ভাঙ্গা ঘরে চাঁদের আলো: রিক্সা চালকের সন্তান রিতার বুয়েট পড়ার ইচ্ছা কি পুরন হবে?

ভাঙ্গা ঘরে চাঁদের আলো: রিক্সা চালকের সন্তান রিতার বুয়েট পড়ার ইচ্ছা কি পুরন হবে?

পার্বতীপুর দিনাজপুর; শ্রম, মেধা ও প্রবল ইচ্ছা শক্তির কাছে পরিবারের অভাব অনটন কাঙ্খিত লক্ষ্য অজর্নে যে কোন বাধা হতে পারে না এবারের এসএসসি পরীক্ষায় জিপিএ-৫ পেয়ে সেটাই প্রমাণ করেছে পার্বতীপুর শহরের হলদিবাড়ীর রেল কোলোনীর রিক্সা চালক আবু বক্কর সিদ্দিকের মেয়ে রিতা আক্তার। সে পার্বতীপুর বালিকা পাইলট উচ্চ বিদ্যালয় থেকে এবারে বিজ্ঞান বিভাগে এসএসসি পরীক্ষায় অংশগ্রহন করে এ সাফল্য অর্জন করে। এর আগে একই বিদ্যালয় থেকে ২০১০ সালে জেএসসি ও ২০০৭ সালে হলদি বাড়ী সঃ প্রাঃ বিদ্যালয় থেকে প্রাথমিক বৃত্তি পরীক্ষায় সে ট্যালেন্টপুলে বৃত্তি পায়।

রিতারা দু’ভাই বোন। ছোট ভাই হৃদয় তৃতীয় শ্রেণীতে পড়ে। বাবা আবু বক্কর সিদ্দিক পেশায় একজন রিক্সা চালক। নিজের ভিটে মাটি নেই। দূর সম্পর্কের এক আত্মীয়ের ভিটেয় ঘর তুলে বসবাস করেন। মা বুলবুলি বেগম মাঝে মধ্যে চুক্তিতে শাড়ি ও থ্রি-পিছে নকশা তোলার কাজ করেন। বাবা মায়ের সামান্য আয়ে চলে পরিবারের চার সদস্যের জীবন। রিতার বাবা জানান, রিক্সা চালিয়ে দিনে দু’শত টাকা মত আয় করে। এতে পরিবারের চার জনের জীবন নির্বাহ করা কষ্টকর। মেয়ের পড়াশুনার প্রবল ইচ্ছার কারণে পরিবারের অভাব অনটন সত্ত্বেও অতিকষ্টে মেয়ের লেখাপড়ার ব্যয়ভার চালিয়ে গেছেন। রিতা তার ভাল ফলাফলের জন্য শিক্ষকদের প্রতি কৃজ্ঞতা প্রকাশ করে জানায়- নিয়মিত পড়াশুনার পাশাপাশি শিক্ষকরা শুরু থেকেই তাকে বিনা পয়সায় প্রাইভেট পড়াতো। তাছাড়া বই খাতা কেনার জন্যও সহয়তা করতেন। পার্বতীপুর বালিকা পাইলট উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক খতিবর রহমান বলেন- রিতা শুধু মেধাবী ছাত্রী নয়, সে আচার-আচরণ ও কথা বার্তায়ও অতিশয় ভদ্র।

রিতার মা-বাবা বলেন, রিতার ভাল ফলাফলে আমরা খুব খুশি। কিন্তু ভবিষ্যতে তার পড়াশুনা অব্যাহত রাখা সম্ভব হবে কিনা এনিয়ে তারা চিন্তিত। রিতার ইচ্ছা ভবিষ্যতে সে বুয়েটে পড়বে।

Social Media Sharing

ăn dặm kiểu NhậtResponsive WordPress Themenhà cấp 4 nông thônthời trang trẻ emgiày cao gótshop giày nữdownload wordpress pluginsmẫu biệt thự đẹpepichouseáo sơ mi nữhouse beautiful