আর্কাইভ  রবিবার ● ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২২ ● ১০ আশ্বিন ১৪২৯
আর্কাইভ   রবিবার ● ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২২
 
 
শিরোনাম: উত্তরবঙ্গে তাপমাত্রা কমার আভাস       অস্কারে যাচ্ছে ‘হাওয়া’       রংপুরে জাপানি নাগরিক হত্যায় ইছাহাকের খালাসের আদেশ স্থগিত       রংপুরে ভুয়া চাকুরীদাতা প্রতারক চক্রের ২ সদস্য গ্রেফতার       মরিয়ম মান্নানের মা জীবিত উদ্ধার; ছিলেন স্বেচ্ছায় আত্মগোপনে      

কুড়িগ্রাম ডিসি অফিসে ছাদবাগানে একশ’ প্রজাতির সাড়ে ৬শ’ গাছ

শুক্রবার, ১০ জুন ২০২২, দুপুর ০৩:৫৬

ডেস্ক: সরকারি ভবনের বিশাল পরিত্যক্ত ছাদ কাজে লাগিয়ে হতে পারে বিকল্প কৃষি। অপার সম্ভাবনার দুয়ার খুলে যেতে পারে এ ছাদ কৃষির মধ্য দিয়ে। পরিবেশ রক্ষায় রাখতে পারে অনন্য ভূমিকা। 

এর দৃষ্টান্তমূলক উদাহরণ তৈরি করেছেন কুড়িগ্রাম জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ রেজাউল করিম। তিনি অফিসের বিশাল ছাদে ফল, ফুল এবং বিলুপ্ত ও বিরল প্রজাতির গাছ লাগিয়েছেন। ছাদের ওপর আম, কমলা, মাল্টা, ড্রাগনসহ প্রায় ১০০ প্রজাতির ৬৫০ গাছ নিয়ে কুড়িগ্রাম জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের ছাদে গড়ে উঠেছে দৃষ্টিনন্দন ছাদবাগান। 

প্রায় ৪০ হাজার স্কয়ার ফুটের বিশাল এই ছাদবাগান অনুপ্রেরণার উৎস হয়ে উঠেছে সবার। সৃজনশীল এ ধারণা থেকে অন্যান্য সরকারি দপ্তরের ছাদে 'ছাদকৃষি' ছড়িয়ে দিতে আগ্রহী হয়ে উঠেছেন বৃক্ষপ্রেমিকরা।

কুড়িগ্রাম জেলা প্রশাসকের কাযালয়ের দুটি ভবনের বিশালাকারের (প্রায় ৪০ হাজার স্কয়ার ফিট) ছাদটি বরাবরই পরিত্যক্ত অবস্থায় ছিল। গত এক বছর আগে জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ রেজাউল করিম উদ্যোগ নেন পরিত্যক্ত ছাদকে বৃক্ষশোভিত সবুজময় ছাদে পরিণত করার জন্য। তার প্রচেষ্টায় ইতোমধ্যে ছাদে লাগানো গাছে ফুল ও ফল ধরেছে। ফল দিয়ে আপ্যায়ন করা হচ্ছে অফিসে আগত অতিথিদের। 

এই ব্যতিক্রমী ছাদবাগান দেখতে ছুটে আসছেন অনেকেই। ছাদকৃষির প্রেরণা নিয়ে ফিরে যাচ্ছেন ঘরে। সরকারি ও বেসরকারি পর্যায়ে পরিত্যক্ত সব ছাদকে কাজে লাগাতে পারলে ছাদকৃষিতে বিপ্লব ঘটানো সম্ভব বলে মনে করেন কুড়িগ্রাম সরকারি কলেজের অধ্যক্ষ ও কৃষি গবেষক প্রফেসর মির্জা নাসির উদ্দিন। 

তিনি বলেন, আমাদের ফল ও ফুলের চাহিদা মেটাতে অসামান্য অবদান রাখার পাশাপাশি পরিবেশ সুরক্ষায় গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে এই ছাদকৃষি। এ জন্য সচেতনতা বৃদ্ধির ওপর গুরুত্ব দেন তিনি।

জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ রেজাউল করিম জানান, কুড়িগ্রাম জেলা প্রশাসকের কার্যালয়টি অনেক বড় আয়তনের। বিশাল ছাদে শখের বসে ছাদকৃষি শুরু করি। বিভিন্ন স্থান থেকে নানা জাতের ফল ও ফুলসহ বিভিন্ন গাছের চারা সংগ্রহ করে লাগানো হচ্ছে। কর্মকর্তা-কর্মচারী সবার আগ্রহের কারণে আস্তে আস্তে বড় হচ্ছে এই বাগান। অবসর সময়ে এ বাগানে সুন্দর সময় কাটানো যায়। মন প্রফুল্ল হয়। এ রকম একটি ছাদকে কাজে লাগিয়ে কৃষিতে অনন্য ভূমিকা এবং পরিবেশ রক্ষায় গুরুত্বপূর্ণ পদক্ষেপ নেওয়া সম্ভব। এটি পরিবেশ সুরক্ষায় আন্দোলন হিসেবে ছড়িয়ে দেওয়ায় আমার ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা।

মন্তব্য করুন


Link copied