আর্কাইভ  বৃহস্পতিবার ● ৬ অক্টোবর ২০২২ ● ২১ আশ্বিন ১৪২৯
আর্কাইভ   বৃহস্পতিবার ● ৬ অক্টোবর ২০২২
 
 
শিরোনাম: দেশের মানুষ আজ নরকে বাস করছে-জিএম কাদের       গাইবান্ধায় লোকালয়ে হনুমান, উৎসুক জনতার ভিড়       নভেম্বরে বন্ধ হবে ৩০ লাখ মোবাইল সিম       কাঁটাতারের বেড়া ভালোবাসা ভাগ করতে পারেনি       করোনায় ২ জনের মৃত্যু, শনাক্ত ৫৪৯      

গঙ্গাচড়ায় নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে পুলিশের মামলা প্রত্যাহারের ৭ দিনের আল্টিমেটাম বিএনপির

শুক্রবার, ১৬ সেপ্টেম্বর ২০২২, বিকাল ০৭:২০

স্টাফ রিপোর্টার: গঙ্গাচড়ায় বিএনপির মিছিলে পুলিশের হামলা গুলি ও লাঠিচার্জের ঘটনায় দায়েরকৃত বিএনপি নেতাকর্মীদের নামে মামলাকে মিথ্যা দাবি করে তা ৭ দিনের মধ্যে প্রত্যাহারের আল্টিমেটাম দিয়েছে রংপুর জেলা বিএনপি।এছাড়াও বাড়ি বাড়ি তল্লাশি ভাংচুর ও পরিবারের সদস্যদের হয়রাণির অভিযোগ করা হয়েছে।  শুক্রবার ( ১৬ সেপ্টেম্বর)  বেলা ১২ টায় রংপুর মহানগরীর গ্রান্ড হোটেল মোড়ের দলীয় কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলনে এই আল্টিমেটা দেন জেলা বিএনপি’র আহ্বায়ক সাইফুল ইসলাম। 
সংবাদ সম্মেলনে জেলা বিএনপি’র সদস্য সচিব আনিছুর রহমান লাকু, সাবেক সংসদ সদস্য পরিতোষ চক্রবর্তি, শাহিদার রহমান জোসনা, পীরগাছা উপজেলা বিএনপি সভাপতি আফছার উদ্দিন প্রামাণিক, বদরগঞ্জ উপজেলা বিএনপি সাধারণ সম্পাদক সাখাওয়াত হোসেন শাহান, জেলা যুবদল সভাপতি নাজমুল আলম নাজু, জেলা ছাত্রদল সভাপতি মনিরুজ্জামান হিজবুলসহ জেলা ও উপজেলা বিএনপি অঙ্গ এবং সহযোগি সংগটনের নেতারা উপস্থিত ছিলেন। 

সংবাদ সম্মেলনে সাইফুল ইসলাম অভিযোগ করেন, গত ৮ সেপ্টেম্বর গঙ্গাচড়া সদরে বিএনপি’র শান্তিপুর্ন  মিছিলে পুলিশ হামলা, লাঠিচার্জ ও  গুলি চালায়। এতে দেড়শ নেতাকর্মীকে গুলিবিদ্ধসহ কয়েকশ বিএনপি নেতাকর্মী, সাধারণ মানুষ মারাত্মকভাবে আহত হয়েছেন। কিন্তু উল্টো পুলিশ ১ হাজার ৫৫০ জন বিএনপি নেতাকর্মীর নাম মামলা করেছে।  পুলিশ গঙ্গাচড়া বিএনপি নেতা-কর্মী-সমর্থকদের বাড়ি বাড়ি তল্লাশি, ভাংচুর  করছে। পরিবারের সদস্যদের বিভিন্ন ধরণের ভয়ভীতি দেখাচ্ছে। মামলায় অজ্ঞাত নামের আড়ালে সাধারণ নিরীহ মানুষকে মামলায় দেয়ার নাম করে হয়রানি করছে। অর্থ বাণিজ্য করছে। 

সংবাদ সম্মেলনে বিএনপির এই নেতা বলেন, আগামী ৭ দিনের মধ্যে মিথ্য মামলা প্রত্যাহার এবং পুলিশের হয়রানি বন্ধ করতে হবে। তা করা হলে গণআন্দোলনের মাধ্যমে রংপুর বিভাগ অচল করে দেয়া হবে। 
এসব অভিযোগের ব্যপারে রংপুর জেলা পুলিশের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার ( এ সার্কেল) হোসাইন মুহাম্মদ রায়হান জানান, গঙ্গাচড়ায় পুলিশের ওপর হামলা এবং সরকারি কাজে বাঁধা দেয়ার ঘটনায় পুলিশের মামলায় সুর্নিদিষ্টভাবে অভিযান পরিচালনা করা হচ্ছে। কাউকে হয়রানি, তল্লাশি কিংবা বাড়িঘড়ে ভাংচুর করা হচ্ছে না। অপরাধিদের ধরতে অভিযান চলছে, তা অব্যাহত থাকবে। নিরপরাধ কেউ হয়রাণির শিকার হবে না। 

মন্তব্য করুন


Link copied