আর্কাইভ  সোমবার ● ৩ অক্টোবর ২০২২ ● ১৮ আশ্বিন ১৪২৯
আর্কাইভ   সোমবার ● ৩ অক্টোবর ২০২২
 
 
শিরোনাম: রংপুরে ধর্ষক গ্রেফতার       পাঁচ দিনের ছুটির কবলে প্রশাসন       এলপিজি গ্যাসের দাম কমল       রংপুর মেডিকেলের উপপরিচালক ও সহকারী পরিচালসহ ৩ কর্মকর্তাকে বদলি       ঘোড়াঘাটের সাবেক ইউএনওকে হত্যাচেষ্টার রায় ৪ অক্টোবর      

গাইবান্ধায় গৃহবধূকে হত্যার দায়ে এক ব্যক্তির মৃত্যুদণ্ড

বুধবার, ১৫ ডিসেম্বর ২০২১, বিকাল ০৫:১২

গাইবান্ধা: গাইবান্ধার সুন্দরগঞ্জ উপজেলার গৃহবধূ রোজিনা বেগমকে প্রকাশ্যে ছুরিকাঘাতে হত্যার দায়ে সবুজ ফকির নামে ব্যক্তিকে মৃত্যুদণ্ডের আদেশ দিয়েছেন আদালত।

বুধবার (১৫ ডিসেম্বর) দুপুরে গাইবান্ধা জেলা ও দায়রা জর্জ আদালতের বিচারক দীলিপ কুমার ভৌমিক এই রায় ঘোষণা করেন। আদালতে দণ্ডপ্রাপ্ত আসামি সবুজ ফকিরের উপস্থিতিতে এই রায় দেওয়া হয়। 

দণ্ডপ্রাপ্ত সবুজ ফকিরের (৩৮) বাড়ি সুন্দরগঞ্জ উপজেলার উত্তর সাহাবাজ গ্রামে। সবুজ ওই গ্রামে শাহজাহান ফকিরের ছেলে। নিহত রোজিনা বেগম একই গ্রামের জহুরুল ইসলামের স্ত্রী। 

বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী জেলা জজ আদালতের পাবলিক প্রসিকিউটর (পিপি) মো. ফারুক আহমেদ প্রিন্স। 


মামলার বরাত দিয়ে তিনি জানান, পাওনা টাকার জেরে গৃহবধূ রোজিনা বেগমকে ছুরিকাঘাতে হত্যা করা হয়। এই মামলার একমাত্র আসামি সবুজ ফকির আদালতে আত্মসমর্পণ করে হত্যার দায় স্বীকার করে জবানবন্দি দেয়। এছাড়া এ মামলায় আদালতে ১৮ জন সাক্ষীর সাক্ষ্য গ্রহণ করা হয়। দীর্ঘ শুনানি ও সাক্ষ্য প্রমাণের ভিত্তিতে আদালত আসামি সবুজ ফকিরকে মৃত্যুদণ্ডের আদেশ দিয়েছেন। আদালতের এই রায়ে সন্তোষ প্রকাশ করেন তিনি।  

মামলা সূত্রে জানা গেছে, ২০১৮ সালের ৯ এপ্রিল রুজিনা বেগমের পথরোধ করে সবুজ ফকির। এ সময় সবুজ ধারালো ছুরি দিয়ে প্রকাশ্যে গৃহবধূ রোজিনার পেটে ছুরিকাঘাত করে পালিয়ে যায়। স্থানীয়রা মারাত্মক আহত অবস্থায় রোজিনাকে উদ্ধার করে হাসপাতালে নিয়ে গেলে চিকিৎসক তাকে মৃত্যু ঘোষণা করেন। এ ঘটনায় নিহতের স্বামী জহুরুল ইসলাম বাদী হয়ে একমাত্র সবুজ ফকিরকে আসামি করে সুন্দরগঞ্জ থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন। পরে তদন্ত শেষে পুলিশ সবুজ ফকিরকে অভিযুক্ত করে আদালতে চার্জশীট দাখিল করেন।

মন্তব্য করুন


Link copied