আর্কাইভ  সোমবার ● ৩ অক্টোবর ২০২২ ● ১৮ আশ্বিন ১৪২৯
আর্কাইভ   সোমবার ● ৩ অক্টোবর ২০২২
 
 
শিরোনাম: পাঁচ দিনের ছুটির কবলে প্রশাসন       এলপিজি গ্যাসের দাম কমল       রংপুর মেডিকেলের উপপরিচালক ও সহকারী পরিচালসহ ৩ কর্মকর্তাকে বদলি       ঘোড়াঘাটের সাবেক ইউএনওকে হত্যাচেষ্টার রায় ৪ অক্টোবর       রংপুরে মাসব্যাপী শিল্প ও বাণিজ্য মেলা উদ্বোধন      

দিনাজপুরে ৫ হাজার অতিথি'র আপ্যায়নে বট-পাকুরের বিয়ে

বুধবার, ৯ মার্চ ২০২২, রাত ০৯:২১

শাহ্ আলম শাহী,দিনাজপুর থেকে: গায়ে হলুদ, বাদ্য-বাজনা, উলুধ্বনি, রান্না ও পাঁচ হাজার অতিথি আপ্যায়নসহ হিন্দু শাস্ত্রমতে সব আয়োজনই ছিল এই বিয়েতে। তবে,দিনব্যাপী এই বিয়ের বর-কনে ছিল বট-পাকুর গাছ।

আজ বুধবার সন্ধ্যায় মহাধুমধামে বৃক্ষের এমন ব্যতিক্রম বিয়ে হয়ে গেলো, দিনাজপুর কাহারোল উপজেলায়।  সুন্দরপুর ইউনিয়নের গড়নুরপুর গ্রামে ভদ্রকালী মন্দিরের সামনে এই জমজমাট এ বিয়ের আয়োজনে মন্দিরপ্রাঙ্গণ ছিলো ভক্ত-পুণ্যার্থীদের মিলন মেলা।

এই ব্যতিক্রমী বিয়ের আয়োজন করেন, গরনুরপুর, পরমেশপুর, নথাবাড়ী, ইটুয়া, বয়াইল পাতমা ও ইসানপুর গ্রামের বাসিন্দারা। তারা নিজেরাই চাঁদা তুলে যুগিয়েছেন,বিয়ের খরচ।

বিয়েতে কনে শ্রীমতি বটেশ্বরীর বাবা হিসেবে কন্যাদান করেছেন ইটুয়া নৌধনবাড়ী গ্রামের রমেশ্বর রায় ও মাতা আরতী রানী রায় আর ছেলে শ্রীমান পাকুড়ের বাবা মা গড়নুরপুর গ্রামের কমলা কান্ত রায় ও মেনকা রানী রায় দম্পতিগোধূলি লগ্নে বিয়ে হলেও দুপুরে এ বিয়ে ঘিরে এলাকায় দেখা দিয়েছিল উৎসব। আর তাই,দুপুরের আগেই মন্দিরপ্রাঙ্গণ ভরে ওঠে মানুষের পদচারণায়।

অনেকেই জানিয়েছেন, বট ও পাকুড়ের বিয়ে মানেই মঙ্গল আগমন। অতি আগ্রহে এবং মঙ্গল কামনায় বিয়েতে এসেছেন তারা।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা গেছে, বিয়ে ঘিরে বর-কনের পাশে ছাদনাতলা সাজানো হয়। টাঙানো হয়েছিল সামিয়ানা। লাগানো হয় দৃষ্টিনন্দন লাইট। বিয়ের জন্য প্রস্তুত করা হয় চারপাশ। হিন্দুজানো ছিল বিয়ের আসর। পাশেই ব্যস্ত রাঁধুনিরা।

পূজা-অর্চনার মধ্য দিয়ে শুরু হয় বিয়ের আনুষ্ঠানিকতা। এরপরে হিন্দু শাস্ত্র মতে পালন করা হয় বিয়ের আচার। একে একে হয় গ্রামপূজা, গায়ে হলুদ, নান্দিমুখসহ সব অনুষ্ঠান। এরপর দুপুরে ভক্ত-পুণ্যার্থীর মধ্যে বিতরণ করা হয় প্রসাদ (আপ্যায়ন)। দুপুর ১২টা থেকে ছাদনাতলায় মঙ্গলঘট বসিয়ে শুরু হয় বিয়ের আনুষ্ঠানিকতা।

সাধারণ বিয়ের মতোই বরকে ধুতি-পাঞ্জাবি ও কনেকে পরিয়ে দেওয়া হয় শাড়ি। পুরোহিতের মন্ত্র উচ্চারণের মধ্য দিয়ে শেষ হয় বট-পাকুড়ের বিয়ে।

বিয়ের পুরোহিত ছিলেন গনেশ চক্রবর্তী ও তার সহযোগীরা। তিনি জাগো নিউজকে বলেন, সনাতন ধর্ম মতে দেশাচার, কুলাচার ও বেদাচার মেনে বট-পাকুড়ের বিয়ে দেওয়া হলে এলাকার লোকজনের মঙ্গল হয়। শুধু তাই নয়, পবিত্র গীতাতেও বট-পাকুড়ের বিয়ের কথা উল্লেখ রয়েছে। আগে থেকেই এ ধরনের বিয়ের প্রচলন হয়ে আসছে। তাই এমন বিয়েতে থাকতে পেরে আমি অনেক আনন্দিত।

স্থানীয়রা এইচল প্রতিবেদক শাহ্ আলম শাহী'কে জানান, মন্দির প্রাঙ্গণে তিন-চার বছর আগে পাশাপাশি গাছ দু'টি লাগানো হয়েছিল। হিন্দু শাস্ত্রমতে পাশাপাশি বট-পাকুড় গাছ থাকলে ফল আসার আগেই তাদের বিয়ে দিতে হয়। এই রীতি মেনেই বিয়ের আয়োজন।

বিয়ে দেখতে আসা, এলাকার প্রবীণ ব্যক্তি ভবেশ শাহা,কমলা কান্ত,বিনতি রানী জানান,এ ধরনের বিয়ের কথা আমি শুনেছি। কিন্তু কখনোই দেখা হয়নি। তাই অনেক আগ্রহ নিয়ে বিয়ে দেখতে আসি।

আড়ম্বরপূর্ণ আয়োজনের বিষয়ে মন্দির কমিটির সভাপতি বিশাল রায় ও সাধারণ সম্পাদক মৃনাল কান্তি রায় জাগো নিউজকে বলেন, গ্রামের সবাই মিলে চাঁদা দিয়ে এ বিয়ের আয়োজন করেছে। ছয় গ্রামের লোকজন মিলে এমন আয়োজন করায় আমরা বেশ খুশি। বিয়েতে প্রায় সাড়ে ৩ লাখ টাকা ব্যয়ে ৫ হাজার মানুষকে আপ্যায়ন করা হয়েছে। আমন্ত্রিতদের খাওয়ানো হয় সবজিঘণ্ট আর পায়েস। সঙ্গে ছিল জলপাইয়ের আচার। মূলত রীতি চরিতার্থ করার স্বার্থেই এ আয়োজন। বট-পাকুড় এখন আজীবন এভাবে পাশাপাশি থাকবে এটাই আমাদের কামনা।

মন্তব্য করুন


Link copied