আর্কাইভ  সোমবার ● ৩ অক্টোবর ২০২২ ● ১৮ আশ্বিন ১৪২৯
আর্কাইভ   সোমবার ● ৩ অক্টোবর ২০২২
 
 
শিরোনাম: রংপুরে ধর্ষক গ্রেফতার       পাঁচ দিনের ছুটির কবলে প্রশাসন       এলপিজি গ্যাসের দাম কমল       রংপুর মেডিকেলের উপপরিচালক ও সহকারী পরিচালসহ ৩ কর্মকর্তাকে বদলি       ঘোড়াঘাটের সাবেক ইউএনওকে হত্যাচেষ্টার রায় ৪ অক্টোবর      

দিনাজপুর লিচু বাগানে দেড় হাজার মেট্রিক টন মধু আহরণের সম্ভাবনা

শনিবার, ২ এপ্রিল ২০২২, সকাল ০৯:৪০

শাহ্ আলম শাহী, দিনাজপুর থেকে: দিনাজপুরে লিচু গাছগুলো এবার মুকুলে ভরে গেছে। তাই,মুকুলের সমারোহে লিচু বাগানগুলোতে গেলবারের চেয়ে বেড়ে গেছে মৌমাছিদের আনাগোনা। লিচু বাগানগুলোতে। স্থানীয় উদ্যোক্তরাসহ দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে মৌথামারিরা এসে ভিড় জমিয়েছে। এতে উদ্যোক্তা ও মৌখামারিরা এবার দেড় হাজার মেট্রিক টন মধু আহরণের পাশাপাশি মৌমাছির পরাগায়নের মাধ্যমে ৩০ ভাগ বেশি লিচু উৎপাদনের সম্ভাবনা রয়েছে।

ধানের জেলা দিনাজপুরে লিচু বাগানগুলোতে সারিবদ্ধ মৌ বাক্স শোভা পাচ্ছে। মৌমাছির গুঞ্জন আর মৌখামারিদের কর্ম ব্যস্ততায় এখন মুখরিত লিচু বাগানগুলো। মৌমাছি লিচু মুকুলের মধু নিপূনভাবে আহরণের পর বাক্সে ফিরছে।  বাক্সে মধু জমা রেখে আবারো মধু আহরণে ছুটছে। 

সিরাজগঞ্জ থেকে দিনাজপুরের লিচু বাগানে মৌখামার বসিয়েছেন, মৌখামারি চাস মিয়া ও তার দুই ছেলে আরমান সরকার এবং ইমাম সরকারসহ তাদের দল। দেশের সবচেয়ে বড় মৌখামারি চান মিয়া জানালেন,তারা এবার ৪টি স্থানে ৮ শতাধিক মৌ বাক্স বসিয়েছেন,মধু সংগ্রহের জন্যে। ইতিমধ্যে একশত পঞ্চাশ মেট্রিক টন মধু সংগ্রহ করেছেন। আরও আড়াই থেকে তিনশত মেট্রিক টন মধু আহরণের সম্ভাবনা রয়েছে তাদের।

শুধু চান মিয়া নয়,কর্মব্যস্ত উদ্যোক্তা ও মৌখামারিরা ইতোমধ্যে প্রচুর মধু উৎপাদন করেছেন।বাকি সময়ে আরও দ্বিগুণ মধু আহরণের সম্ভাবনা রয়েছে,বলে জানিয়েছেন তারা। দেশের সর্ব বৃহত্তর নিচু উৎপাদনের এলাকা বিরল উপজেলাতেই এবার প্রায় শতাধিক মৌখামারি ও উদ্যোক্তা মধু আহরণে নেমেছেন। তারা বেশির ভাগই এসেছেন,দেশের বিভিন্ন এলাকা থেকে। দেশের অন্যতম দক্ষ মৌখামারি চান মিয়াও অবস্থান করছেন,বিরলের মাধরবাটি’তে। জেলার ১৩টি উপজেলার লিচু বাগানগুলোতে এবার প্রায় ৭ শতাধিক মৌখামারি মধু আহরণে কাজ করছেন।

পুষ্টি নিরাপত্তা ও অর্থনৈতিক সমৃদ্ধিও জন্য মধু এবং মৌচাষে অভিজ্ঞতা অর্জনে দিনাজপুরের লিচু বাগানগুলোতে বাংলাদেশ সুগারক্রপ গবেষণা ইন্সটিটিউটের নতুন উদ্যোক্তারাও কাজ করছেন। এতে কর্মসংস্থানের সুযোগ হয়েছে,অনেকের।

জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের অতিরিক্ত পরিচালক প্রদীপ কুমার গুহ জানিয়েছেন, এ বছর জেলায় সাড়ে ৫হাজার বাগানের ৭ হাজার ৫’শ ৫২ হেক্টর জমিতে লিচু চাষ হচ্ছে।।এবার লিচুর ফলনের লক্ষ্য ধরা হয়েছে ৪০ হাজার ৭’শ ১২  মেট্রিক টন।মাদ্রাজি,বেদেনা-বোম্বাই-চায়না থ্রি, কাঁঠালিসহ বিভিন্ন জাতের লিচু উৎপাদন হয় এ জেলায়। বেদেনা লিচু দেশের চাহিদা মিটিয়ে বিদেশেও রপ্তানি হয়।এই সূ-স্বাদু লিচু’র খ্যাতি রয়েছে বিশ্বজুড়ে।বাগানে মধু আহরণে মৌমাছির পরাগায়নের মাধ্যমে লিচু ফলন আরও ৩০ ভাগ বৃদ্ধির সম্ভাবনা রয়েছে।

লিচু বাগানে মধু উৎপাদনে মৌখামারি ও লিচু বাগান মালিকদের নিয়মিত পরামর্শ ও সহায়তা দিচ্ছে, কৃষি বিভাগ। এবার জেলায় প্রায় ৩০ কোটি টাকা মূল্যের দেড় হাজার মেট্রিক টন মধু উৎপাদনের আশা করছেন সংশ্লিষ্টরা।

মন্তব্য করুন


Link copied