আর্কাইভ  রবিবার ● ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২২ ● ১০ আশ্বিন ১৪২৯
আর্কাইভ   রবিবার ● ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২২
 
 
শিরোনাম: উত্তরবঙ্গে তাপমাত্রা কমার আভাস       অস্কারে যাচ্ছে ‘হাওয়া’       রংপুরে জাপানি নাগরিক হত্যায় ইছাহাকের খালাসের আদেশ স্থগিত       রংপুরে ভুয়া চাকুরীদাতা প্রতারক চক্রের ২ সদস্য গ্রেফতার       মরিয়ম মান্নানের মা জীবিত উদ্ধার; ছিলেন স্বেচ্ছায় আত্মগোপনে      

বুড়িমারী স্থলবন্দরে কর্মকর্তা-কর্মচারীর ১৬ জনকে বদলি

বুধবার, ৩১ আগস্ট ২০২২, সকাল ০৯:৩৫

লালমনিরহাট প্রতিনিধি: নানান দুর্নীতি আর অনিয়মের অভিযোগে লালমনিরহাটের বুড়িমারী স্থলবন্দরের ১৮ জন কর্মকর্তা-কর্মচারীর মধ্যে ১৬ জনকে এক আদেশেই বদলি করেছে স্থলবন্দর কর্তৃপক্ষ। 

তবে পুলিশের কনস্টেবল আহসান ও ইমিগ্রেশন  অভিসার মো. হাসান কবির বদলি না হওয়াতে  সেখানকার যাত্রী ও ব্যবসায়ীরা দুচিন্তায় পড়েছেন। 

বুধবার (৩১ আগস্ট) সকালে বদলির চিঠি পাওয়ার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন স্থলবন্দরের প্রধান কর্মকর্তা সহকারী পরিচালক (ট্রাফিক) মোহাম্মদ রুহুল আমীন।

এর আগে গত ২৫ আগষ্ট আদেশের চিঠিতে ১৫ কর্মকর্তা-কর্মচারীকে আগামী ৩১ আগস্টের মধ্যে বদলিকৃত কর্মস্থলে যোগদান করতে বলা হয়েছে।

বদলির আদেশ প্রাপ্তরা হলেন- বুড়িমারী স্থলবন্দরের সহকারী পরিচালক(ট্রাফিক) রুহুল আমীন, ট্রাফিক পরিদর্শক জাহিদুর রহমান, সালাউদ্দিন, শাহিন মাহমুদ, আমিনুল হক, ওয়্যারহাউজ সুপারেনটেনডেন্ট মানিকুর রহমান, মাছুদ রানা, ফিদা হাসান, এসএম মাসুম বিল্লাহ, মিনহাজ উদ্দিন, হারুন অর রশিদ, আবুল বাসার, হিসাবরক্ষক আদনান খলিল বসুনিয়া, ক্যাশিয়ার ভ্রমর কুমার সরকার, কম্পিউটার অপারেটর হাসমত উল্লাহ ও অফিস সহকারী কাম কম্পিউটার অপারেটর সেলিম রেজা।

তবে স্থলবন্দরে দায়িত্বরত পুলিশের কনস্টেবল আহসান ও বুড়িমারী স্থলবন্দর ইমিগ্রেশন পুলিশের দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তা উপ-পরিদর্শক (এসআই) মো. হাসান কবির বদলি না হওয়া সেখানকা  যাত্রী ও ব্যবসায়ীরা দুচিন্তায় পড়েছেন। তাদের দ্রুত বুড়িমারী স্থলবন্দর থেকে সরিয়ে নিতে অনুরোধ করেছেন।

বুড়িমারী স্থলবন্দরের শুরু থেকে একসঙ্গে এতগুলো কর্মকর্তাকে বদলি করার রেকর্ড এবারই প্রথম। সরকারি চাকরির এটি একটি নিয়ম মাফিক প্রক্রিয়া-বদলির নির্দেশ পাওয়া কর্মকর্তা বললেও সংশ্লিষ্ট একটি সূত্র দাবি করেছে বেশির ভাগ কর্মকর্তা-কর্মচারী অবৈধ লেনদেনের সঙ্গে জড়িত থাকায় তাঁদের সবাইকে এ স্থলবন্দর থেকে একযোগে প্রত্যাহার করে দেশের বিভিন্ন স্থলবন্দরে বদলি করা হয়েছে। 

জানাগেছে, ত্রিদেশিয় বাণিজ্যিক রুট পাটগ্রাম উপজেলার বুড়িমারী স্থলবন্দর। ভারত, ভুটান ও নেপালের সঙ্গে বংলাদেশের বাণিজ্যিক প্রাণ কেন্দ্র এ স্থলবন্দর। বন্দরটিতে দুর্নীতি আর অনিয়মের কারণে প্রতিনিয়ত হয়রানির শিকার হচ্ছেন ব্যবসায়ীরা।

একই ভাবে অসাধু কিছু কর্মকর্তা-কর্মচারীর কারণে সরকারও রাজস্ব বঞ্চিত হচ্ছে। বন্দরের নানান অনিয়ম ও দুর্নীতি নিয়ে ভুক্তভোগীরা দুর্নীতি দমন কমিশনসহ(দুদক) বিভিন্ন দফতরে লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন।

ভুক্তভোগীদের অভিযোগের মধ্যে রয়েছে, ওজন স্টেশনে ভারতীয় ট্রাক থেকে অবৈধ টাকা আদায়, খাদ্যশস্যের ট্রাকে চাঁদা, বিল শাখায় জালিয়াতি করে সরকারি রাজস্ব আত্মসাৎ, আগত পণ্যবাহী গাড়ির আর ওজন গাড়ির গরমিল, রাত্রীকালীন ট্রাক চার্জ আদায় করে আত্মসাৎ, ছুটি ছাড়াই কর্মস্থলের বাইরে থাকা।

অভিযোগ আমলে নিয়ে গোপনে তদন্ত করে স্থলবন্দর কর্তৃপক্ষ চেয়ারম্যানের কাছে গত ৭ আগস্ট তদন্ত প্রতিবেদন পাঠায় দুদক। স্থলবন্দ কর্তৃপক্ষ ১৪ আগস্ট প্রতিবেদন পেয়ে ১৬ আগস্ট আমলে নেয়। এরপর গত ২৫ আগস্ট এ স্থলবন্দরের ১৮ জন কর্মকর্তা-কর্মচারীর মধ্যে ১৬ জনকে বিভিন্ন বন্দরে বদলির আদেশ দিয়ে চিঠি পাঠায় স্থলবন্দর কর্তৃপক্ষ।

স্থলবন্দরের যাত্রা শুরুর পর থেকে এবারই প্রথম একই আদেশে ১৬ জন কর্মকর্তা-কর্মচারীর বদলি হচ্ছে। নৌ পরিবহন মন্ত্রণালয়ের অধীন বাংলাদেশ স্থলবন্দরের পরিচালক ডি এম আতিকুর রহমান স্বাক্ষরিত এ আদেশে বদলিকৃতদের ৩১ আগস্টের মধ্যে নতুন কর্মস্থলে যোগদানের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, বুড়িমারী স্থলবন্দরের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের নানা অনিয়ম, অর্থ আত্মসাৎ ও দুর্নীতির একটি লিখিত অভিযোগ চলতি বছরে দুর্নীতি দমন কমিশনে (দুদক) পাঠানো হয়। এতে ভারতীয় ট্রাক থেকে ওজন স্টেশনে অবৈধভাবে টাকা আদায়, খাদ্যশস্যের ট্রাক থেকে টাকা গ্রহণ, বিল শাখায় জালিয়াতি করে সরকারি রাজস্ব আত্মসাৎ, আগত পণ্যবাহী গাড়ি ও ওজনের গাড়ির গরমিল, রাত্রিকালীন ট্রাক চার্জ জমা না দিয়ে আত্মসাৎ,১-২ দিনের ছুটি নিয়ে দীর্ঘদিন কর্মস্থলে না থাকা, ভুয়া চালান করা, ওজন স্কেলে পণ্যের ওজন কম দেখিয়ে টাকা আত্মসাৎ, বহিরাগতদের নিয়ে কর্মস্থলে আড্ডা দেওয়াসহ নানা অনিয়ম করে কোটি কোটি টাকার সরকারি রাজস্ব হরিলুট ও লুটতরাজ করার কথা উল্লেখ করা হয়েছে। 

এ স্থলবন্দরের সিঅ্যান্ডএফ এজেন্ট, শ্রমিক, আমদানিকারক ও বন্দর ব্যবহারকারীদের উল্লেখ করে দেওয়া অভিযোগে স্বাক্ষর না থাকলেও দুদক বিভিন্নভাবে খোঁজখবর নেয়। গত ৭ আগস্ট অভিযোগের কপি বাংলাদেশ স্থলবন্দর কর্তৃপক্ষের চেয়ারম্যানের কাছে দেয় কমিশন। স্থলবন্দর কর্তৃপক্ষ গত ১৪ আগস্ট অভিযোগের কপিটি পেয়ে ১৬ আগস্ট আমলে নেয়। এর ১১ দিনের মাথায় উল্লেখিত কর্মকর্তা-কর্মচারীদের বদলির নির্দেশ দেয় ঢাকার স্থলবন্দর কর্তৃপক্ষ। 

এ বিষয়ে বন্দরের সিঅ্যান্ডএফ ব্যাবসায়ী ও বুড়িমারী ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান নিশাদ নেওয়াজ বলেন, কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে ব্যবসায়ীরা দুদকে অনিয়মের অভিযোগ দিয়েছেন শুনেছি, সে কারণে তাদের বদলি করতে পারে। তবে বদলি হওয়াতে ব্যবসায়ীদের একটু সমস্যা হবে।

এ বিষয়ে বুড়িমারী স্থলবন্দরের সহকারী পরিচালক (ট্রাফিক) রুহুল আমীন বলেন, বুড়িমারী স্থলবন্দরে ১৮ জন কর্মকর্তা-কর্মচারীর মধ্যে আমিসহ ১৬ জনকে বদলি করা হয়েছে। দুর্নীতির বিষয়টি আমি জানি না। এখানে দুর্নীতির কিছুই নাই। বিভিন্ন ধরনের বেনামি চিঠিপত্র অনেকেই অনেকভাবে দেন। আর এখানকার কর্মকর্তা-কর্মচারীদের মধ্যে অভ্যন্তরীণ কোন্দল রয়েছে। মূলত একে অপরকে কাদা ছোড়াছুড়ির ঘটনায় এ রকমটা করা হয়েছে।’

 

মন্তব্য করুন


Link copied