আর্কাইভ  শনিবার ● ৪ ডিসেম্বর ২০২১ ● ২০ অগ্রহায়ণ ১৪২৮
আর্কাইভ   শনিবার ● ৪ ডিসেম্বর ২০২১

রংপুর নগরবাসীর জন্য ভারতের অত্যাধুনিক অ্যাম্বুলেন্স উপহার

মঙ্গলবার, ১৬ নভেম্বর ২০২১, রাত ০৮:২৩

মমিনুল ইসলাম রিপন: প্রতিশ্রুতি পূরণে ভারত সবসময় বাংলাদেশের পাশে ছিল বলে মন্তব্য করেছেন বাংলাদেশে নিযুক্ত ভারতীয় হাইকমিশনার বিক্রম কুমার দোরাইস্বামী।
তিনি বলেছেন, মহামারী করোনা মোকাবেলায় ভারতের পক্ষ থেকে বাংলাদেশকে পিপিই, চিকিৎসা সামগ্রী, টেস্টিং কীট, ভ্যাকসিন প্রদান করেছে। পাশাপাশি এ দেশের সক্ষমতা বৃদ্ধির অঙ্গীকার বিনিময় কর্মশালার মাধ্যমে বিভিন্ন ভাবে সহায়তা করেছে। বাংলাদেশের সাথে ভারতের সম্পর্ক অনেক ভালো। ভারতের প্রয়োজনে প্রকৃত বন্ধু হিসেবে বাংলাদেশও পাশে দাঁড়িয়ে ছিলো। এই সম্পর্ক ভবিষ্যতেও ভালো থাকবে।
মঙ্গলবার (১৬ নভেম্বর) দুপুরে উপহার স্বরূপ রংপুর সিটি কর্পোরেশনকে দেওয়া অ্যাম্বুলেন্স হস্তান্তর অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি একথা বলেন।
দোরাইস্বামী বলেন, করোনা মহামারির শুরুর দিকে ভারতীয় জনগণের পক্ষ থেকে বাংলাদেশকে অ্যাম্বুলেন্সসহ বিভিন্ন চিকিৎসা সামগ্রী উপহার দেয়া হয়। জনগণের কল্যাণে ভারত তার সামর্থ্য অনুযায়ী বাংলাদেশকে সহায়তা করতে প্রতিশ্রুতিবদ্ধ। সেই ধারাবাহিকতার অংশ হিসেবে নগরবাসীর স্বাস্থ্য সেবা এগিয়ে নিতে রংপুর সিটি করপোরেশনকে একটি অত্যাধুনিক অ্যাম্বুলেন্স উপহার দেয়া হলো।
অনুষ্ঠানে রংপুর সিটি করপোরেশনের মেয়র মোস্তাফিজার রহমান মোস্তফা বলেন, মহান মুক্তিযুদ্ধের সময় থেকে ভারত-বাংলাদেশের যে সম্পর্ক তৈরি হয়েছে, তা অকৃত্রিম বন্ধুত্বের সম্পর্ক। আমরা কৃতজ্ঞ রংপুরের মানুষের চিকিৎসা সেবা এগিয়ে নিতে ভারতের উপহার পেয়ে।  নতুন এই সিটি করপোরেশনকে এগিয়ে নিতে এবং এখানকার শিক্ষা, স্বাস্থ্যসেবার মানোন্নয়নে ভারতীয় হাইকমিশন পাশে থাকার আশ্বাস দিয়েছেন।  আমাদের বিশ্বাস এই বন্ধন আগামীতেও অটুট থাকবে।
অ্যাম্বুলেন্সের উদ্বোধন ও চাবি হস্তান্তর অনুষ্ঠান শেষে সাংবাদিকদের সাথে বিভিন্ন বিষয়ে কথা বলেন ভারতীয় হাইকমিশনার বিক্রম কুমার দোরাইস্বামী। সীমান্ত হত্যা বন্ধ না হওয়া প্রসঙ্গে জানতে চাইলে তিনি বলেন, সীমান্তে যে কোনো হত্যাকাণ্ড বা হতাহতের উভয় দেশের জন্য দুঃখজনক ও অপ্রত্যাশিত। দুই দেশের সম্মিলিত পদক্ষেপে এ ধরণের দুঃখজনক ঘটনা নিরসন করতে হবে। ভারতীয় সীমান্তরক্ষীকে সুনির্দিষ্টভাবে বলা হয়েছে, যদি তাদের ওপর হামলার কোনো শঙ্কা না থাকে, তবে যেন সীমান্তে কোনো অবস্থাতেই গুলি না চালায়। আমরা কোনো দেশেই সীমান্ত হত্যা চাই না।
তিনি আরও বলেন, কোনো জীবন নষ্ট হওয়া কখনোই কাম্য নয়। সীমান্তে অবৈধ কার্যক্রম বেড়েছে। সীমান্ত হত্যা বন্ধ করতে হলে চোরাচালান বন্ধ করতে হবে। তবে আগামীতে সীমান্ত হত্যার মত ঘটনা যেন না ঘটে সে ব্যাপারে ভারত সরকার সজাগ রয়েছে।
এছাড়াও তিস্তার পানিবন্টন, উন্নয়নে অংশীদারিত্ব, ব্যবসা-বাণিজ্য, চিকিৎসা, শিক্ষা ও সাংস্কৃতিক বিভিন্ন ইস্যুতে সাংবাদিকদের সাথে কথা বলেন তিনি। এসময় প্রতিশ্রুত তিস্তা চুক্তি বাস্তবায়নে জটিলতা রয়েছে উল্লেখ করে দোরাইস্বামী বলেন, চুক্তি প্রক্রিয়া সম্পন্ন করতে দু-দেশের মধ্যে সবধরণের চেষ্টা অব্যাহত রয়েছে।
এ সময় ভারতীয় সহকারী হাইকমিশনার (রাজশাহী) সঞ্জিব কুমার ভাট্টি, রংপুর সিটি করপোরেশনের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা রুহুল আমিন মিঞা, প্যানেল মেয়র মাহমুদুর রহমান টিটু প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।
পরে রংপুর নগরের মাহিগঞ্জ বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় ও কলেজে নির্মিত নতুন একাডেমিক ভবনের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে অংশ নেন বিক্রম কুমার দোরাইস্বামী। ভারতীয় হাইকমিশনের অর্থায়নে নতুন এ ভবনটি নির্মিত হয়েছে। সেখানে বক্তব্যে দোরাইস্বামী বলেন, বাংলাদেশের উন্নয়ন অগ্রগতির চালক প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তার বিচক্ষণ নেতৃত্বে এদেশ উন্নয়নের ধারাবাহিকতায় সব সেক্টরে এগিয়ে যাচ্ছে। অনুষ্ঠানে বীরমুক্তিযোদ্ধা রামকৃষ্ণ সোমানীর সভাপতিত্বে আরও বক্তব্য রাখেন- রংপুর সিটি মেয়র মোস্তাফিজার রহমান মোস্তফা, মাহিগঞ্জ বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় ও কলেজের অধ্যক্ষ জাহানারা বেগম প্রমুখ।
এরআগে সকালে তিনি রংপুর সিটি করপোরেশনের বিভিন্ন উন্নয়ন কার্যক্রম পরিদর্শন করেন। পরে বিকেলে রংপুর চেম্বার অব কমার্স এন্ড ইন্ডাস্ট্রি আয়োজিত ব্যবসায়িক আলোচনা অনুষ্ঠানে যোগ দেন ভারতীয় হাইকমিশনার বিক্রম কুমার দোরাইস্বামী।

উপহার স্বরূপ রংপুর সিটি কর্পোরেশনকে দেওয়া অ্যাম্বুলেন্সের উদ্বোধন ও চাবি হস্তান্তর করেন অনুষ্ঠানেপ্রধানঅতিথি বাংলাদেশে নিযুক্ত ভারতীয় হাইকমিশনার বিক্রম কুমার দোরাইস্বামী। 

মন্তব্য করুন


Link copied