আর্কাইভ  রবিবার ● ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২২ ● ১০ আশ্বিন ১৪২৯
আর্কাইভ   রবিবার ● ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২২
 
 
ব্রেকিং নিউজ
শিরোনাম: সংবিধান অনুযায়ই যথা সময়ে নির্বাচন হবে- রংপুরে সমাজকল্যান মন্ত্রী       পঞ্চগড়ে নৌকাডুবিতে ২৪ জনের মৃত্যু       উত্তরবঙ্গে তাপমাত্রা কমার আভাস       অস্কারে যাচ্ছে ‘হাওয়া’       রংপুরে জাপানি নাগরিক হত্যায় ইছাহাকের খালাসের আদেশ স্থগিত      

রংপুর মেডিকেলের এমআরআই-আল্ট্রাসনোগ্রাম-ইসিজি কক্ষে আগুন

মঙ্গলবার, ১৩ সেপ্টেম্বর ২০২২, দুপুর ০৪:৩৮

মমিনুল ইসলাম রিপন: রংপুর মেডিকেল কলেজ (রমেক) হাসপাতালের এমআরআই, আল্ট্রাসনোগ্রাম ও ইসিজি কক্ষে অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটেছে। খবর পেয়ে ফায়ার সার্ভিসের দুটি ইউনিট এসে দ্রুত আগুন নিভিয়ে ফেলেছেন। তবে  হাসপাতালের কর্মচারীদের দাবি, ফায়ার সার্ভিসের গাড়ি পৌঁছানোর আগেই তারা নিজেরা আগুন নেভাতে সক্ষম হয়েছে।

মঙ্গলবার (১৩ সেপ্টেম্বর) সকাল সাড়ে এগারোটার দিকে হাসপাতালের নিচতলার আল্ট্রাসনোগ্রাম, এমআরআই ও ইসিজি কক্ষে আকস্মিক আগুন ধরে যায়। ধারণা করা হচ্ছে বৈদ্যুতিক শর্টসার্কিট থেকে আগুনের সূত্রপাত ঘটেছিল। তবে ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ জানা সম্ভব হয়নি।

ফায়ার সার্ভিস ও হাসপাতাল সূত্রে জানা গেছে,  মঙ্গলবার সকালে হাসপাতালের নিচতলার আল্ট্রাসনোগ্রাম, এমআরআই ও ইসিজি কক্ষ থেকে হঠাৎ ধোঁয়া বের হতে দেখেন কর্মচারীরা। ভিতরে আগুন ছড়িয়েছে সন্দেহে তারা ফায়ার সার্ভিসে খবর দেন। এরই মধ্যে কয়েকজন কর্মচারী কক্ষের দরজায় লাগানো তালা ভেঙে ভিতরে ঢুকে বৈদ্যুতিক সার্কিটের সুইচ বন্ধ করে দেন। পরে ফায়ার সার্ভিসের দুটি ইউনিট সেখানে এসে আধা ঘণ্টার মধ্যে আগুন নিভিয়ে ফেলেন। তবে ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ এখনও নিরূপণ করা যায়নি।

এদিকে হাসপাতালের কর্মচারী ও রোগীদের স্বজনেরা জানান, হঠাৎ করে কালো ধোঁয়ার কুণ্ডলী দেখে তারা আতঙ্কিত হয়ে পড়েন। হাসপাতালে অগ্নিকাণ্ডের নেপথ্যে অন্য কোনো কারণ রয়েছে কিনা তার সঠিক তদন্ত দাবি করেছেন তারা।

সেখানকার লিফটম্যান রফিকুল ইসলাম জানান, সকালে হঠাৎ করে এমআরআই কক্ষ থেকে ধোঁয়া বের হতে দেখি। এটা দেখে অনেকেই ছুটোছুটি শুরু করেন। পরে আমরা কয়েকজন মিলে ওই কক্ষের দরজায় থাকা তালাটি হাতুড়িতে ভেঙে ভিতরে ঢুকে আগেভাগেই বিদ্যুৎতের মেইন সুইচটি বন্ধ করে দেই। এরপরই আগুন কিছুটা নিয়ন্ত্রণে আসে। পরে ফায়ার সার্ভিসের লোকজন সেখানে এসে উপস্থিত হয়।  

হাসপাতালে দায়িত্বরত আনসার সদস্য সেলিম মিয়া বলেন, আমি গেটের সামনে দায়িত্ব পালন করছিলাম। হঠাৎ দেখি লোকজন ভয়ে ছোটাছুটি করছে। পরে জানতে পারি এমআরআই কক্ষে আগুন লেগেছে। আমি সেখান থেকে দৌঁড় দিয়ে এসে ভিতরে দেখি ধোঁয়ায় চারপাশ অন্ধকার। পরে অগ্নিনির্বাপক যন্ত্রটি নিয়ে কক্ষের ভিতরে ঢুকে আগুন নেভানোর চেষ্টা করি। তখন পর্যন্ত আগুনের সূত্রস্থল খুঁজে পাওয়া যাচ্ছিল না। এতোটাই ধোঁয়া সেখানে ছড়িয়েছিল। পরে এমআরআইসহ আল্ট্রাসনোগ্রাম ও ইসিজি কক্ষে একাধারে যতগুলো অগ্নিনির্বাপক যন্ত্র হাতের কাছে পেয়েছি, তা দিয়ে আগুন নেভানোর চেষ্টা করেছি।

রংপুর মেডিকেল কলেজ (রমেক) হাসপাতালের পরিচালক ডা. শরিফুল ইসলাম বলেন, ওই বিল্ডিংটি অনেক পুরোনো এবং বৈদ্যুতিক ওয়্যারিং নষ্ট হওয়ার উপক্রম হয়েছে। এ কারণে বৈদ্যুতিক শর্টসার্কিট থেকে আগুনের সূত্রপাত হয়েছে বলে আমরা ধারণা করছি। 

মন্তব্য করুন


Link copied