Templates by BIGtheme NET
আজ- বুধবার, ২৫ নভেম্বর, ২০২০ :: ১১ অগ্রহায়ণ ১৪২৭ :: সময়- ৮ : ১৬ অপরাহ্ন
Home / আলোচিত / রংপুর সিটি করপোরেশন নির্বাচন: ইভিএম নিয়ে দ্বিমত

রংপুর সিটি করপোরেশন নির্বাচন: ইভিএম নিয়ে দ্বিমত

নজরুল মৃধা : আসন্ন রংপুর সিটি করপোরেশন (রসিক) নির্বাচনে কিছু কেন্দ্রে ইভিএমের (ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিন) মাধ্যমে ভোট গ্রহণের চিন্তা করছে নির্বাচন কমিশন। তবে এ পদ্ধতি নিয়ে রাজনৈতিক দলগুলোর মধ্যে দ্বিমত রয়েছে।

আওয়ামী লীগ এটাকে স্বাগত জানালেও বিএনপি ও জাতীয় পার্টি এই পদ্ধতির বিরোধিতা করছে। তবে জেলা নির্বাচন অফিস জানিয়েছে, বিষয়টি প্রাথমিক পর্যায়ে রয়েছে।

সম্প্রতি নির্বাচন কমিশন চলতি বছরের ডিসেম্বর মাসে রংপুর সিটি করপোরেশনের নির্বাচনের সম্ভাব্য তারিখ নির্ধারণ করেছে। সেই সঙ্গে নির্বাচনে ইভিএম ব্যবহার করে ভোট নেওয়ার কথাও জানিয়েছে। নির্বাচন কমিশনের এ ঘোষণায় বিএনপি ও জাতীয় পার্টির নেতারা দ্বিমত পোষণ করে বক্তব্য দিয়েছেন।

সিটি করপোরেশন নির্বাচনে জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান ঘোষিত মেয়র প্রার্থী মোস্তাফিজার মোস্তফা বলেন, ‘নির্বাচন কমিশন রংপুর নগরীর কয়েকটি ওয়ার্ডে ইভিএমে ভোট নেওয়ার যে ঘোষণা দিয়েছে, তা কোনো অবস্থাতেই আমরা মেনে নেব না। এটা সূক্ষ্ম কারচুপির একটি প্রক্রিয়া।’ তিনি বলেন, একেকটি ওয়ার্ডে কমপক্ষে ১৫ হাজার ভোটার রয়েছে। যে মেশিন সম্পর্কে শিক্ষিত মানুষই জানে না, সেখানে কীভাবে সাধারণ মানুষ এ মেশিনের মাধ্যমে ভোট দেবেন?

তিনি নির্বাচন কমিশনসহ সংশ্লিষ্টদের প্রতি এ পদ্ধতি ব্যবহার না করার আহ্বান জানিয়েছেন।

রংপুর মহানগর বিএনপির সাধারণ সম্পাদক ও আসন্ন সিটি করপোরেশন নির্বাচনে সম্ভাব্য মেয়র প্রার্থী শহিদুল ইসলাম মিজু বলেন, নির্বাচন কমিশন ইভিএম পরীক্ষামূলক ব্যবহারের ঘোষণা দিয়েছে। নির্বাচনের সময় পরীক্ষামূলক কাজ চলে না। এটা জনগণের সঙ্গে প্রতারণা করে ডিজিটাল কারচুপির মাধ্যমে নিজেদের প্রার্থীদের জয়ী করার চক্রান্ত।

তিনি বলেন, সরকার তাদের পছন্দের প্রার্থীকে জয়ী করাতে পারবে না বলে ষড়যন্ত্রের নির্বাচন করার পাঁয়তারা করছে। তিনি নির্বাচন কমিশনকে এ ধরনের কর্মকাণ্ড থেকে বিরত থাকার অনুরোধ জানিয়েছেন।

রংপুর মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সম্ভাব্য মেয়র প্রার্থী সাফিয়ার রহমান এই পদ্ধতিকে স্বাগত জানিয়ে বলেন, প্রযুক্তির যুগে ইভিএমকে স্বাগত জানাতে হবেই। দেশ এগিয়ে চলছে। সেখানে ভোটে প্রযুক্তি ব্যবহার করে মানুষ ভোট দেওয়ার সুযোগ পাবে- এটাই স্বাভাবিক। এই পদ্ধতিকে ইতিবাচক হিসেবে সবার দেখা উচিত।

জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা সাহতাব উদ্দিন জানান, দুটি ওয়ার্ডে ইভিএম ব্যবহারের চিন্তা করছে নির্বাচন কমিশন। তবে বিষয়টি প্রাথমিক পর্যায়ে রয়েছে। এ পদ্ধতি ভালোভাবে যাচাই করার পর সিদ্ধান্ত হবে।

নির্বাচনের সম্ভাব্য সময় ঘোষণা করার পর থেকে রংপুরে আওয়ামী লীগের এক ডজন প্রার্থী, বিএনপির ও জাতীয় পার্টির একাধিক প্রার্থী প্রচার শুরু করেছেন। তারা জনসংযোগ করছেন ও ভোটারদের সঙ্গে দেখা করে দোয়া কামনা করছেন। অনেকে নগরীতে পোস্টার-ব্যানার লাগিয়ে মেয়র প্রার্থী হিসেবে দোয়া কামনা করছেন।

Social Media Sharing

ăn dặm kiểu NhậtResponsive WordPress Themenhà cấp 4 nông thônthời trang trẻ emgiày cao gótshop giày nữdownload wordpress pluginsmẫu biệt thự đẹpepichouseáo sơ mi nữhouse beautiful