আর্কাইভ  মঙ্গলবার ● ৬ ডিসেম্বর ২০২২ ● ২২ অগ্রহায়ণ ১৪২৯
আর্কাইভ   মঙ্গলবার ● ৬ ডিসেম্বর ২০২২
 width=

 

রংপুর সিটি নির্বাচন: দলীয় কোন্দলে পরাজয়ের আশঙ্কা আ.লীগ প্রার্থীর

রংপুর সিটি নির্বাচন: দলীয় কোন্দলে পরাজয়ের আশঙ্কা আ.লীগ প্রার্থীর

রংপুর সিটিতে ইভিএম সম্পর্কে জানেন না ৯০ শতাংশ ভোটার

রংপুর সিটিতে ইভিএম সম্পর্কে জানেন না ৯০ শতাংশ ভোটার

রংপুর সিটি নির্বাচনে ৩৬ প্রার্থীর মনোনয়ন বাতিল

রংপুর সিটি নির্বাচনে ৩৬ প্রার্থীর মনোনয়ন বাতিল

রংপুর সিটি নির্বাচনে নৌকার প্রার্থীর সঙ্গে জেলা আ'লীগের মতবিনিময়

রংপুর সিটি নির্বাচনে নৌকার প্রার্থীর সঙ্গে জেলা আ'লীগের মতবিনিময়

 width=
শিরোনাম: বগুড়ায় সড়ক দুর্ঘটনায় ৩ জনের মৃত্যু       স্কুলে ভর্তির লটারির তারিখ পরির্বতন       আগামী বছর বাংলাদেশের মাথাপিছু আয় হবে পাকিস্তানের দ্বিগুণ       ব্যায়াম করার সময় হাবিপ্রবি শিক্ষার্থীর মৃত্যু       রংপুরে নবাগত জেলা প্রশাসক ড. চিত্রলেখা নাজনীনের সাথে সাংবাদিকদের মতবিনিময়      
 width=

আওয়ামী লীগ সবার হাতে নির্যাতিত: প্রধানমন্ত্রী

রবিবার, ৩০ অক্টোবর ২০২২, রাত ১০:১২

ডেস্ক: প্রধানমন্ত্রী ও সংসদ নেতা শেখ হাসিনা বলেছেন, ‘আওয়ামী লীগ সবার হাতে নির্যাতিত। প্রথমে জিয়াউর রহমান, তারপর জেনারেল এরশাদ তারপর খালেদা জিয়া। দফায় দফায় গ্রেপ্তার ও নির্যাতনের আমরা তো ভুক্তভোগী। কিন্তু আওয়ামী লীগ যেহেতু জনগণের সংগঠন আর সাজেদা চৌধুরীরর মতো অসংখ্য নিবেদিত প্রাণ নেতাকর্মীরা এই সংগঠনের হাল ধরে থেকেছেন বলে চরম দুঃসময়েও এই সংগঠন কখনো দিক হারায়নি, নীতি আদর্শ নিয়ে এগিয়ে গেছে। তাই আমি আশা করি আমাদের যারা নেতৃবৃন্দ আছেন তারা কিন্তু এই প্রয়াত নেতাদের আদর্শটা মাথায় রেখেই সংগঠনকে এগিয়ে নেবেন, সেটাই আমি চাই।’

রোববার সন্ধ্যায় জাতীয় সংসদের ২০তম অধিবেশনে সংসদ উপনেতা মরহুম সৈয়দা সাজেদা চৌধুরী, সংসদ সদস্য শেখ এ্যানী রহমান, ব্রিটেনের রানি দ্বিতীয় এলিজাবেথসহ সাবেক একাধিক সংসদ সদস্য ও বিশিষ্টজনের মৃত্যুতে আনা শোক প্রস্তাবের ওপর আলোচনায় অংশ নিয়ে এ কথা বলেন সরকারপ্রধান। তিনি বলেন,  সৈয়দা সাজেদা চৌধুরীর মৃত্যু শুধু আওয়ামী লীগের নয়, দেশের জন্য অপূরণীয় ক্ষতি। দলের পাশাপাশি জাতির জন্য তাঁর গুরুত্বপূর্ণ অবদান রয়েছে। তিনি (সৈয়দা সাজেদা চৌধুরী) চলে যাওয়াতে শুধু আওয়ামী লীগ নয়, আমাদের দেশের ক্ষতি, জাতির ক্ষতি এমনকি আমারও (ক্ষতি) হয়েছে।’

প্রধানমন্ত্রী বলেন, তিনি শুধু সংসদ উপনেতাই নন, তিনি একজন মুক্তিযোদ্ধা, সমাজ সেবক, সংস্কৃতিমনা ব্যক্তিত্ব ছিলেন তাঁকে হারিয়ে আমাদের বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ একজন সত্যিকার নিবেদিত প্রাণ ব্যক্তিকে হারাল। আমি তাঁর আত্মার মাগফিরাত কামনা করি এবং শোকসন্তপ্ত পরিবারের সদস্যদের প্রতি সমবেদনা জানাই। তিনি বলেন, যাঁদের সঙ্গে ছিলাম একে একে সবাই ছেড়ে চলে যাচ্ছে। বয়স হয়ে গেছে যেতেই হবে, হয়তো আমিও একদিন যাবো। তবে, যে যেটা করেছেন (যাঁর যাঁর অবদান) সেটা আমাদের স্মরণ করতে হবে।

তিনি স্মরণ করেন, চলার পথে সবসময় মরহুম সৈয়দা সাজেদা চৌধুরীকে পাশে পেয়েছেন। তাঁকে ফুপু বলে ডাকতেন এবং সত্যিকার অর্থে যেন তাঁর ফুপুই তিনি ছিলেন এবং স্নেহ দিয়ে আগলে রেখেছিলেন। প্রধানমন্ত্রী বিভিন্ন সমাবেশে বক্তৃতা দিতে যাওয়ার সময় অসুস্থ হয়ে পড়লে তাঁর সেবার কথাও স্মরণ করেন।

তিনি বলেন, জিয়াউর রহমানের অত্যাচার-নির্যাতনের শিকার আমাদের আওয়ামী লীগের প্রতিটি নেতাকর্মী, জাপার সাবেক চেয়ারম্যান জেনারেল এরশাদ, সংসদে বিরোধী দলীয় নেতা বেগম রওশন এরশাদ। আনোয়ার হোসেন মঞ্জুসহ জাপা নেতাদের কারাগারে ন্যূনতম ডিভিশন না দিয়ে সাধারণ কয়েদীদের সঙ্গে রাখার মতো বেগম জিয়ার অত্যাচার-নির্যাতনের কথা স্মরণ করিয়ে দিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, সাজেদা চৌধুরী বা মতিয়া চৌধুরীকে গ্রেপ্তার করে জিয়াউর রহমান যেমন ডিভিশন না দিয়ে ফেলে রেখেছিল, খালেদা জিয়াও জাপা নেতাদের সঙ্গে একই কাজ করেছিল। অন্যদিকে তাঁর সরকার মানবিক কারণে এবং তাঁর নির্বাহী ক্ষমতাবলে সাজা স্থগিত রেখে খালেদা জিয়াকে বাসায় থেকে চিকিৎসা করার সুযোগ করে দিয়েছে। অর্থাৎ একটি মানবিক দৃষ্টিকোণ থেকেই এটা করা হয়েছে, যেহেতু তিনি একজন বয়োবৃদ্ধ মানুষ। 

তিনি আরও বলেন, অন্যদিকে বিএনপি সরকার সাবেক বিমান বাহিনী প্রধান জামালউদ্দিনকে একটি ঘড়ি চুরির মামলা দিয়ে কোনো ডিভিশন না দিয়ে দুটি কম্বল দিয়ে সাধারণ কয়েদীদের সঙ্গে ফেলে রেখেছিল। এইভাবে মানুষকে তারা অত্যাচার করেছে।

চলতি সংসদের কোনো সংসদ সদস্য মারা গেলে সংসদে শোক প্রস্তাবের ওপর আলোচনা করে রেওয়াজ অনুযায়ী সংসদের বৈঠক মূলতবি করা হয়। স্পিকার ড. শিরীর শারমিন চৌধুরী পরে অধিবেশন মূলতবি করেন। প্রধানমন্ত্রী ছাড়াও আলোচনায় অংশ নেন সরকারি দলের আমির হোসেন আমু, শেখ ফজলুল করিম সেলিম, বেগম মতিয়া চৌধুরী, মুহাম্মদ ফারুক খান, শাজাহান খান, আসম ফিরোজ, শ ম রেজাউল করিম, ওয়াসিকা আয়শা খান, জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান ও সংসদ উপনেতা গোলাম মোহাম্মদ কাদের, জাপার কাজী ফিরোজ রশীদ, ব্যারিস্টার আনিসুল ইসলাম মাহমুদ, বিরোধী দলীয় চিফ হুইপ মসিউর রহমান রাঙ্গা প্রমুখ। 

মন্তব্য করুন


Link copied