আর্কাইভ  সোমবার ● ২৬ ফেব্রুয়ারি ২০২৪ ● ১৪ ফাল্গুন ১৪৩০
আর্কাইভ   সোমবার ● ২৬ ফেব্রুয়ারি ২০২৪
 width=
 
 width=
 
শিরোনাম: ফুলবাড়ীতে এসএসসি পরীক্ষায় প্রথমবার চার পরীক্ষার্থী বহিস্কার       তিস্তা ইউনিভার্সিটিতে সমন্বয় সভা অনুষ্ঠিত       সংরক্ষিত আসনে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় এমপি হলেন ৫০ নারী       দিনাজপুরের সাবেক এমপি আখতারুজ্জামান জেল-হাজতে       সরকারি মাল দরিয়ায় ঢালবেন না: প্রধানমন্ত্রী      

নীলফামারীতে আওয়ামী লীগের কর্মী সমাবেশ

শুক্রবার, ২৩ জুন ২০২৩, রাত ০৮:১৫

স্টাফরিপোর্টার,নীলফামারী॥ বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের ৭৪ তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষ্যে ও সম্প্রতি কেন্দ্রীয় অওয়ামী লীগের পক্ষে নীলফামারী সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের কার্যক্রমে মডেল আওয়ামী লীগের স্বীকৃতি প্রদানে ধন্যবাদ জ্ঞাপন উপলক্ষে ওয়ার্ড ও ইউনিয়ন প্রতিনিধি সমাবেশ এবং আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে নীলফামারীতে। 
বুধবার(২১ জুন) বিকালে জেলা শিল্পকলা একাডেমি মিলনায়তনে সদর উপজেলা আওয়ামীলীগের আয়োজনে সমাবেশে প্রধান অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন সাবেক সংস্কৃতি মন্ত্রী নীলফামারী-২ (সদর) আসনের সংসদ সদস্য আসাদুজ্জামান নুর। 
সমাবেশের উদ্ধোধন করেন রংপুর বিভাগের দায়িত্বপ্রাপ্ত কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক সজিত রায় নন্দী। 
উত্ত সমাবেশের মাধ্যম নীলফামারী জেলা ও সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের রাজনীতিতে অসামান্য অবদানের জন্য জেলা আওয়ামী লীগের সিনিয়র সহ-সভাপতি প্রবীন নেতা এ্যাড. আলিমুদ্দিন বসুনিয়াকে সম্মাননা প্রদান করা হয়। এসময় তিনি তার রাজনৈতিক অনুভুতি ও অভিজ্ঞতা সকলের মাঝে বক্তব্যে তুলে ধরেন। 

নীলফামারী-২ (সদর) আসনের সংসদ সদস্য আসাদুজ্জামান নুর বলেন, তৃণমূলে চেইন অব কমান্ডের বাইরে যাওয়ার সুযোগ নেই। শুধু ইউনিয়ন, ওয়ার্ড, পাড়া-মহল্লা কমিটি গঠন করলেই কাজ শেষ নয়, সকলকে সাংগঠনিক দায়িত্ব পালন করতে হবে। কেন্দ্রীয় নিদের্শনা পালন করতে হবে দলের প্রত্যেক নেতাকর্মীকে। জনগণের কাছে যেতে হবে, জনগণের মাঝে দেশের উন্নয়নের আলোচনা করতে হবে, জনগণের আস্থা অর্জন করতে হবে। তিনি বলেন, গ্রামে অগ্নিকান্ড বা দূর্যোগ হলে আওয়ামীলীগের ওয়ার্ড কমিটি সহযোগীতার জন্য আগে পৌছায়। বিএনপির ওয়ার্ড কমিটি আছে কিন্তু তারা জনগণের পাশে গিয়ে দাড়ায় না। কারণ তারা আওয়ামীলীগকে ভোট দিয়েছে বলে। বিএনপি শুধু নির্বাচনের সময় জনগণের কাছে যায়। আওয়ামীলীগ সারা বছর জনগণের পাশে থাকে। উপস্থিত ইউনিয়নের আওয়ামীলীগের সকলের কাছে আহবান জানাই শুধু পাড়া-মহল্লায় নয় প্রতিটি বাসা বাড়িতে আওয়ামীলীগের উন্নয়নের কথা পৌছিয়ে দিতে হবে। তিনি আরো বলেন, ঢাকা ও চট্টগ্রামের পরে উত্তরবঙ্গের মানুষের দুঃখ কষ্ট দূর করার তিনি ২০০১ সালে মাত্র একটি কারখানা দিয়ে উত্তরা ইপিজেড শুরু করেছিলেন। বিএনপি জামায়াতকে নিয়ে নির্বাচনে ক্ষমতায় এসে ইপিজেড বন্ধ করেদিয়েছিল। কারণ বলেছিল বিদ্যুৎ দিয়ে এই ইপিজেড চালানো যাবেনা, এতো দূরে কেউ বিনিয়োগও করতে যাবে না। কিন্তু মুল কারণ ছিল প্রতিহিংসা রাজনীতি। ২০০৯ সালে আওয়ামীলীগ সরকার ক্ষমতায় এসে পূনরায় ইপিজেড চালু করে, এবং আজ সেখানে ৫০ হাজার শ্রমিক কাজ করছে, যার মধ্যে ৩৫ হাজার নারী শ্রমিক রয়েছে। আর সেই ইপিজেড বিদ্যুৎ দিয়ে চলছে এবং সেখানে ১৯টি বিভিন্ন ফ্যাক্টরি রয়েছে।  

কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক সজিত রায় নন্দী বলেন, আওয়ামী লীগ শান্তির প,ে মানবতার প।ে যারা অপ-রাজনীতি করে, যারা ষড়যন্ত্রের রাজনীতি করে, তারাই ঘোলা পানিতে মাছ শিকার করে দেশকে অস্থিতিশীল করতে চায়। তিনি বলেন, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উপর প্রায় ২১ বার হামলা করা হয়েছে। কিন্তু তিনি কখনও ভয় পাননি। জীবনের ঝুঁকি নিয়ে তিনি আজ স্বাধীন বাংলাদেশ পরিচালনা করছেন। ১৯৭৫ সালের ১৫ আগষ্ট যেদিন বঙ্গবন্ধুকে সপরিবারে হত্যা করা হয়, শেখ হাসিনা তখন তার ছোট বোন শেখ রেহানা, স্বামী ও দুই সন্তানসহ তখনকার পশ্চিম জার্মানিতে অবস্থান করছিলেন। ফলে তারা প্রাণে বেঁচে যান। বঙ্গবন্ধুর হত্যাকান্ডের পর প্রায় ছয় বছর নির্বাসিত জীবন কাটিয়ে ১৯৮১ সালের ১৭ মে দেশে ফেরেন তার জ্যেষ্ঠ কন্যা শেখ হাসিনা। জীবনের ঝুঁকি থাকার পরও বঙ্গবন্ধুর রেখে যাওয়া স্বপ্ন বাস্তবায়নে ও দেশ গড়ার দৃঢ় প্রতিজ্ঞা নিয়ে আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনা স্বদেশ প্রত্যাবর্তন করেছিলেন বলেই বাংলাদেশ এখন বিশ্বে উন্নয়নের রোল মডেল, জাতি হিসেবে গর্বের। শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বাংলাদেশ আজ আলোকিত। তিনি আরো বলেন, আমাদের মহান স্বাধীনতাকে যারা অর্থহীন করতে চায় তাদেরকে প্রতিহত করা হবে। আজ আমরা স্মার্ট বাংলাদেশের স্বপ্ন দেখছি। ২০৪১ সালের অনেক আগেই আমরা উন্নত বাংলাদেশে পৌঁছে যাব। তিনি আরো বলেন, বাংলাদেশে এখন করোনা চতুর্থ ডোজ চলছে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এই টিকা জনগণের কাছে বিনামূল্যে পৌছিয়ে দিয়েছেন। এই করোনা মোকাবিলায় বিশ্বে ৫ম ও এশিয়ায় ১ম স্থান অর্জন করেছে বাংলাদেশ। আওয়ামীলীগ সরকার ক্ষমতায় আছে বলে এটি সম্ভব হয়েছে, অন্য দল থাকলে এখনও দেশে করোনায় মানুষ মারা যেতো। 

সদর উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি আবুজার রহমানের সভাপতিত্বে সমাবেশে অন্যান্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি ও নীলফামারী পৌরসভার মেয়র দেওয়ান কামাল আহমেদ, জেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক ও জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান এ্যাড. মমতাজুল হক, সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারন সম্পাদক ওয়াদুদ রহমান। 

মন্তব্য করুন


 

Link copied