আর্কাইভ  মঙ্গলবার ● ৬ ডিসেম্বর ২০২২ ● ২২ অগ্রহায়ণ ১৪২৯
আর্কাইভ   মঙ্গলবার ● ৬ ডিসেম্বর ২০২২
 width=

 

রংপুর সিটি নির্বাচন: দলীয় কোন্দলে পরাজয়ের আশঙ্কা আ.লীগ প্রার্থীর

রংপুর সিটি নির্বাচন: দলীয় কোন্দলে পরাজয়ের আশঙ্কা আ.লীগ প্রার্থীর

রংপুর সিটিতে ইভিএম সম্পর্কে জানেন না ৯০ শতাংশ ভোটার

রংপুর সিটিতে ইভিএম সম্পর্কে জানেন না ৯০ শতাংশ ভোটার

রংপুর সিটি নির্বাচনে ৩৬ প্রার্থীর মনোনয়ন বাতিল

রংপুর সিটি নির্বাচনে ৩৬ প্রার্থীর মনোনয়ন বাতিল

রংপুর সিটি নির্বাচনে নৌকার প্রার্থীর সঙ্গে জেলা আ'লীগের মতবিনিময়

রংপুর সিটি নির্বাচনে নৌকার প্রার্থীর সঙ্গে জেলা আ'লীগের মতবিনিময়

 width=
শিরোনাম: বগুড়ায় সড়ক দুর্ঘটনায় ৩ জনের মৃত্যু       স্কুলে ভর্তির লটারির তারিখ পরির্বতন       আগামী বছর বাংলাদেশের মাথাপিছু আয় হবে পাকিস্তানের দ্বিগুণ       ব্যায়াম করার সময় হাবিপ্রবি শিক্ষার্থীর মৃত্যু       রংপুরে নবাগত জেলা প্রশাসক ড. চিত্রলেখা নাজনীনের সাথে সাংবাদিকদের মতবিনিময়      
 width=

ডেপুটি স্পিকারের সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে আ.লীগের দুই গ্রুপে সংঘর্ষ

শনিবার, ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২২, রাত ১০:১৬

ডেস্ক: জাতীয় সংসদের নবনিযুক্ত ডেপুটি স্পিকার অ্যাডভোকেট শামসুল হক টুকুর গণসংবর্ধনা অনুষ্ঠানে আওয়ামী লীগের কর্মী ও সমর্থকদের মধ্যে চেয়ার ছোঁড়াছুড়ি ও হাতাহাতির ঘটনা ঘটেছে। তবে এতে বড় ধরনের কোনো হতাহতের ঘটনা ঘটেনি।

আজ শনিবার দুপুরে পাবনা শহরের বীর মুক্তিযোদ্ধা রফিকুল ইসলাম বকুল স্বাধীনতা চত্বরে আয়োজিত গণসংবর্ধনা অনুষ্ঠানে  স্লোগান দেওয়া ও প্যান্ডেলে দাঁড়ানোকে কেন্দ্র করে এ ঘটনা ঘটে। জেলা আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে এই গণসংবর্ধনার আয়োজন করা হয়।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, দুপুর ১২টার দিকে পাবনা জেলা আওয়ামী লীগের ব্যানারে সংবর্ধনা অনুষ্ঠান শুরু হয়। অনুষ্ঠান পরিচালনায় ছিলেন জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক দপ্তর সম্পাদক অ্যাডভোকেট আব্দুল আহাদ বাবু।

দুপুর ২টার দিকে নবনিযুক্ত ডেপুটি স্পিকারের বক্তব্য শুরুর কয়েক মিনিট আগে অনুষ্ঠানস্থলের একেবারে পেছনে থাকা কর্মীরা স্লোগানদেওয়া ও দাঁড়ানো নিয়ে হাতাহাতি শুরু করেন। তারা এ সময় একে অপরের দিকে প্লাস্টিকের চেয়ার ছুঁড়ে মারতে থাকেন। এ সময় সিনিয়র নেতাদের হস্তক্ষেপে পরিস্থিতি স্বাভাবিক হয়।

সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও উপজেলা চেয়ারম্যান মোশারফ হোসেন বলেন, ‘সাধারণ কর্মীদের মধ্যে স্লোগান দেওয়া নিয়ে বা দাঁড়ানো নিয়ে একেবারেই তুচ্ছ ঘটনা ঘটে। সঙ্গে সঙ্গে তা সিনিয়র নেতারা নিয়ন্ত্রণ করেন এবং শেষ পর্যন্ত সুন্দর ও সফলভাবে অনুষ্ঠান সম্পন্ন হয়।’

পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতি অ্যাডভোকেট তসলিম হাসান সুমন বলেন, ‘উল্লেখযোগ্য কোনো ঘটনা ঘটেনি। সাধারণ কর্মীদের মধ্যে ১ মিনিটের মতো উত্তেজনা ও ঝামেলা হয়। সব নেতাকর্মীরা স্বতস্ফুর্তভাবে এই অনুষ্ঠানে যোগ দেন।’

মন্তব্য করুন


Link copied