আর্কাইভ  বুধবার ● ৮ ফেব্রুয়ারি ২০২৩ ● ২৬ মাঘ ১৪২৯
আর্কাইভ   বুধবার ● ৮ ফেব্রুয়ারি ২০২৩
 width=
 width=
শিরোনাম: ঠাকুরগাঁওয়ে এইচএসসিতে ফেল করায় গলায় ফাঁস দিয়ে কলেজ ছাত্রীর আত্নহত্যা       রংপুরে অনলাইনে ভেটেনারি মেডিসিন বিক্রয়ের নামে প্রতারনাকারী গ্রেফতার       দিনাজপুর শিক্ষাবোর্ডে ১৩ টি কলেজে পাশ করেনি কেউ       রংপুর বিভাগে পাশের হার ও জিপিএ-৫ কমেছে       তেঁতুলিয়ায় ফুটেছে টিউলিপ, পর্যটকের ভিড়      
 width=

ভাঙনের পথে আরেক ধাপ এগোল জাপা

বৃহস্পতিবার, ১৫ সেপ্টেম্বর ২০২২, সকাল ০৮:৫৬

ডেস্ক: জাতীয় পার্টির সাবেক মহাসচিব মশিউর রহমান রাঙ্গাকে দলের সব পদ থেকে অব্যাহতি দেওয়া হয়েছে। অব্যাহতি পাওয়ার পর দলের চেয়ারম্যান জিএম কাদেরকে রাঙ্গা হুশিয়ারি দিয়ে বলেছেন, ‘জিএম কাদের কীভাবে রাজনীতি করবেন তা আমি দেখে নেব।’ একইদিন জাতীয় পার্টির প্রতিষ্ঠাতা হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের ছেলে শাদ এরশাদকে এরশাদ ট্রাস্টের সদস্য করা হয়েছে। এ ছাড়া প্রয়াত এরশাদের স্ত্রী ও দলটির প্রধান পৃষ্ঠপোষক রওশন এরশাদ কর্তৃক দলীয় সম্মেলনের আহ্বানের পর থেকে দলটিতে দুই দুই ধারায় ভাগ হয়ে নতুন নতুন সিদ্ধান্ত নিচ্ছে। একদিকে রওশনপন্থি নেতারা সম্মেলন প্রস্তুত কমিটিতে লোক বৃদ্ধি করছেন, অন্যদিকে জিএম কাদের তার দলের বেশিরভাগ এমপি ও সর্বোচ্চ ফোরামের নেতৃবৃন্দকে নিয়ে নতুন নতুন পরিকল্পনা নিয়ে এগোচ্ছেন। এমতাবস্থায় দলটির ভাঙনের পথে আরেক ধাপ এগোল।

দলের নেতৃবৃন্দ বলছেন, যখন দলকে নির্বাচনমুখী করে সামনে এগিয়ে যাওয়ার কথা, ঠিক সে সময়ে জাপায় এমন জটিলতা তাদের হতাশ করেছে। দলটি পুনরায় ভাঙনের মুখে পড়তে যাচ্ছে বলেও শঙ্কা তাদের।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক জাতীয় পার্টিন সর্বোচ্চ ফোরামের এক নেতা বলেন, জাতীয় পার্টি ক্ষমতা থাকা অবস্থায় এদেশের অনেক উন্নতি হয়েছে। সে কারণে দলটির স্বৈরাচারী ভাবমূর্তি ভুলে মানুষ গ্রহণও করেছে। কিন্তু দুঃখের বিষয়, শুধু সঠিক নেতৃত্বের অভাবে দলটির অবস্থান পোক্ত হতে পারল না। দলের অবস্থান পোক্ত হলে কিংবা কারিশম্যাটিক লিডারশিপ থাকলে আজ জাপা নিয়ে এত খেলা হতো না; দলটি অনেক দূরে যেত।

দলের দপ্তর থেকে গতকাল বুধবার বিকালে জানানো হয়, জাপার সাবেক মহাসচিব মসিউর রহমান রাঙ্গাকে জাতীয় পার্টির (জাপা) সব পদ থেকে অব্যাহতি দেওয়ায় হয়েছে। বলা হয়, দলীয় গঠনতন্ত্রে প্রদত্ত ক্ষমতাবলে প্রেসিডিয়াম সদস্যসহ সব পদ থেকে মসিউর রহমান রাঙ্গাকে অব্যাহতি দিয়েছেন দলের চেয়ারম্যান জিএম কাদের। এরই মধ্যে এই আদেশ কার্যকর হয়েছে।

এরপরই গণমাধ্যমে মন্তব্য দিয়ে বোমা ফাটালেন মসিউর রাঙ্গা। প্রতিক্রিয়ায় গণমাধ্যকে রাঙ্গা বলেন, ‘জাতীয় পার্টির (জাপা) চেয়ারম্যান গোলাম মোহাম্মদ (জিএম) কাদের কীভাবে রাজনীতি করেন তা দেখে নেব।’ তিনি বলেন, ‘আমি সংসদের বিরোধীদলীয় চিপ হুইপ। আমাকে রওশন এরশাদ হুইপ বানিয়েছেন, তিনি (জিএম কাদের) চাইলেও আমার এই পদ খাইতে পারবেন না। আমি দেখে নেব, উনি কীভাবে রাজনীতি করেন।’

তিনি বলেন, ‘হুসেইন মুহম্মদ এরশাদও জিএম কাদেরকে অনেকবার বহিষ্কার করেছিলেন। এখন তিনি কথায় কথায় অন্যদের বহিষ্কার করেন। এবার এটার শেষ দেখে নেব।’

এ বিষয়ে দলের নেতা মুজিবুল হক চুন্নু বলেন, ‘তার সংসদ সদস্য পদ বাতিল করার বিষয়ে কোনো চিন্তা-ভাবনা নেই। তবে তিনি যেহেতু এখন জাতীয় পার্টির কেউ নন, ফলে সংসদে তিনি কীভাবে বিরোধীদলীয় চিফ হুইপের দায়িত্ব পালন করবেন?’

জিএম কাদের দায়িত্ব নেওয়ার পর থেকে বেশ ভালোই চলছিল। দলের মতবিরোধ তথা বিরোধের জন্ম গত ১ সেপ্টেম্বর সন্ধ্যায় হঠাৎ রওশন স্বাক্ষরিত একটি চিঠি, যা গণমাধ্যমে প্রকাশিত হয়। এতে তিনি আগামী ২৬ নভেম্বর একটি সম্মেলনের আহ্বান করেন। সেখানে নিজেকে তিনি সম্মেলন প্রস্তুতি কমিটির আহ্বায়ক করে আট সদস্যের কমিটি ঘোষণা করেন, যাতে দলের চেয়ারম্যান গোলাম মোহাম্মদ কাদেরকে (জিএম কাদের) রাখা হয়নি। তখন চেয়ারম্যানের পক্ষ থেকে বলা হয়, কাউন্সিল ডাকার এখতিয়ার প্রধান পৃষ্ঠপোষকের নেই।

এ অবস্থায় গতকাল বুধবার জাতীয় পার্টির প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান প্রয়াত হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের ছেলে ও রংপুর-৩ আসনের এমপি রাহগির আল মাহি সাদকে এরশাদ ট্রাস্টের সদস্য করা হয়েছে। প্রয়াত হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ ট্রাস্টের চেয়ারম্যান কাজী মো. মামুনুর রশিদ এ তথ্য জানান। তিনি জানান, ট্রাস্টি বোর্ডের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী সাবেক রাষ্ট্রপতি পল্লীবন্ধু হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ ও রওশন এরশাদ এমপির ছেলে রাহগির আল মাহি সাদ এরশাদকে ‘হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ ট্রাস্ট’-এর সদস্য পদে অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে। এটি বুধবার থেকে কার্যকর হবে।

দলটির ইতিহাস থেকে জানা যায়, এর আগেও পর্যায়ক্রমে জাতীয় পার্টি (জাপা) ভেঙে ছয়টি দলে ভাগ হয়ে আছে। ছয়টি দল হলো- বর্তমানে জিএম কাদের নেতৃত্বাধীন জাতীয় পার্টি (জাপা), আনোয়ার হোসেন মঞ্জু নেতৃত্বাধীন জেপি, আন্দালিব রহমান পার্থের নেতৃত্বাধীন বিজেপি, ডা. মতিনের নেতৃত্বাধীন বিজেপি, মোস্তফা জামান হায়দারের নেতৃত্বাধীন জাতীয় পার্টি ও সর্বশেষ এরশাদের সাবেক স্ত্রী বিদিশা সিদ্দিক নেতৃত্বাধীন জাতীয় পার্টি (পুনর্গঠন)। এর মধ্যে রওশনপন্থিদের সঙ্গে কাজ করছেন প্রয়াত হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের সাবেক স্ত্রী বিদিশা সিদ্দিক। নতুন দল জাতীয় পার্টি-পুনর্গঠন নিয়ে বিদিশা সিদ্দিকের তৎপরতা বেশ লক্ষণীয়।

জাতীয় পার্টির বর্তমান সংকট প্রসঙ্গে জিএম কাদের বলেন, জাতীয় পার্টি এখন যে কোনো সময়ের চেয়ে বেশি ঐক্যবদ্ধ ও সংগঠিত। গণমানুষের প্রত্যাশা পূরণে এগিয়ে যাবে দলটি। কোনো ষড়যন্ত্রে মাথানত করবে না। খবর-আমাদের সময়

মন্তব্য করুন


Link copied