আর্কাইভ  শুক্রবার ● ২১ জুন ২০২৪ ● ৭ আষাঢ় ১৪৩১
আর্কাইভ   শুক্রবার ● ২১ জুন ২০২৪
 width=
 
 width=
 
শিরোনাম: ডিমলায় বুড়ি তিস্তার বাঁধ ভেঙ্গে শতাধিক পরিবার পানিবন্দী ॥  তলিয়ে গেছে আবাদী জমি       কিশোরীগঞ্জে পুকুরের পানিতে ডুবে স্কুল ছাত্রের মৃত্যু       নীলফামারীতে দীর্ঘ ছয় বছর আত্মগোপনে থাকার পর ধর্ষণ মামলার পলাতক আসামি গ্রেপ্তার       নীলফামারীতে জনপ্রতিনিধি ও নাগরিক নেতাদের মতবিনিময় সভা       দিনাজপুরে সেই আলোচিত ভূয়া ম্যাজিষ্টেট তিশা আবারো গ্রেফতার       

 width=
 

রংপুরে হাঁড়িভাঙ্গা আমের ফলন বিপর্যয়ের শঙ্কা

রবিবার, ১৯ মে ২০২৪, দুপুর ০৩:১৬

ডেস্ক: দাবদাহ আর খরার কারণে রংপুরে এবার হাঁড়িভাঙ্গা আমের ফলন অর্ধেকে নেমে আসতে পারে বলে আশঙ্কা প্রকাশ করছেন আম চাষিরা। জেলার মিঠাপুকুর উপজেলার হাড়িভাঙ্গা আমের বিভিন্ন বাগান ঘুরে দেখা যায়, বাগানগুলোতে তেমন আম নেই।

অনেক বাগানে হাতেগোনা আম দেখা যায়। বাগানের গাছগুলোতে ছোট ছোট যে আম এসেছে রোদের তীব্রতায় সেগুলো ঝরে পড়ছে। এমন পরিস্থিতি রংপুর জেলার বেশিরভাগ বাগানেই। টানা খরা ও চলমান দাবদাহে আমচাষিরা এবার লোকসানের মুখে পরবে বলে জানান তারা।

রংপুরের মিঠাপুকুর উপজেলার খোড়গাছ ইউনিয়নের জারুল্লাপুর গ্রামের আমচাষি লিটন মিয়া জানান, তার বাগানগুলোতে আমের মুকুল ভালোই এসেছিলো। এরপর থেকে বাগান পরিচর্যার কাজ শুরু করেন। কিন্ত খেয়ারী এলাকায় রোদের তীব্রতা বেশি হওয়ায় আমের গুটি ধরে রাখতে পারি নাই।

গুটি রক্ষার জন্য বাগানে সেচ দেওয়ার পাশাপাশি কীটনাশক স্প্রে করেও কোন লাভ হয়নি। গতবারের চাইতে এবার আমের ফলন কম হবে। ফলন কম হওয়ার অজুহাতে এবার যেন অসাধু ব্যবসায়ীরা আমের দাম বাড়িয়ে না দেয় সেজন্য বাজার মনিটর করার দাবি জানান এই বাগান মালিক।

রংপুর কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক রিয়াজ উদ্দিন জানান, এবার মৌসুমের শুরুতেই ঝড়-বৃষ্টি পরে টানা তাপপ্রবাহে আমের গুটি কিছুটা কম হলেও ফলন ধরে রাখতে বাগানে প্রতিদিন সেচ দেওয়ার পাশাপাশি নিয়মিত বাগান পরিচর্যা করতে হবে।

এবার জেলার ৩ হাজার ৩৩৫ হেক্টর জমিতে আম চাষ করা হয়েছে। এর মধ্যে ১৯০৫ হেক্টর জমিতে হাড়িভাঙ্গা আমের চাষ হয়েছে। এবার জেলায় আমের উৎপাদন ৩০ হাজার মেট্রিক টন হতে পারে বলে জানিয়েছে কৃষি বিভাগ।

মন্তব্য করুন


 

Link copied