আর্কাইভ  রবিবার ● ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২২ ● ১০ আশ্বিন ১৪২৯
আর্কাইভ   রবিবার ● ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২২
 
 
ব্রেকিং নিউজ
শিরোনাম: সংবিধান অনুযায়ই যথা সময়ে নির্বাচন হবে- রংপুরে সমাজকল্যান মন্ত্রী       পঞ্চগড়ে নৌকাডুবিতে ২৪ জনের মৃত্যু       উত্তরবঙ্গে তাপমাত্রা কমার আভাস       অস্কারে যাচ্ছে ‘হাওয়া’       রংপুরে জাপানি নাগরিক হত্যায় ইছাহাকের খালাসের আদেশ স্থগিত      

নীলফামারীতে বঙ্গবন্ধুর বিশ্বস্ত সহচর জোনাব আলীকে সম্মাননা প্রদান

বৃহস্পতিবার, ১০ মার্চ ২০২২, দুপুর ০৩:২২

স্টাফ রিপোর্টার, নীলফামারী॥ নীলফামারীতে মুক্তিযুদ্ধ ও জাতীয় রাজনীতিতে অসামান্য অবদানের জন্য প্রবীণ রাজনীতিবিদ বঙ্গবন্ধুর বিশ্বস্ত সহচর অ্যাডভোকেট এ.কে এমডি জোনাব আলীকে সম্মাননা প্রদান করা হয়েছে। আজ বুধবার(৯ মার্চ) সন্ধ্যা ৭টায় জেলা শিল্পকলা একাডেমি মিলনায়তনে সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের সদ্য অনুমোদন পাওয়া কমিটি ও উপদেষ্টামন্ডলীর অভিষেক অনুষ্ঠানে তাঁকে ওই সম্মাননা প্রদান করা হয়।

সদর উপজেলা আওয়ামী লীগ আয়োজিত ওই অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি ছিলেন নীলফামারী-২ (সদর) আসনের সংসদ সদস্য আসাদুজ্জামান নূর। এসময় তিনি প্রবীণ ওই রাজনীতিবিদকে উত্তরীয় পরিয়ে এবং ক্রেস্ট প্রদান করে সংবর্ধণা জানান। এ সময় ভিশন-২০২১ এর এক ক্ষুদে চিত্র শিল্পীর আঁকা ছবিও তার হাতে তুলে দেয়া হয়।  
এসময় আসাদুজ্জামান নূর বলেন, প্রথমবারের ন্যায় এধরণের অনুষ্ঠান আয়োজন একটি দৃষ্টান্ত। আওয়ামী লীগ একমাত্র দল, যার সঙ্গে জনগণের সম্পর্ক আছে। অনেক দল জনগণের দল হিসেবে দাবি করেণ। কিন্তু জনগণের সঙ্গে তাদের কোন সম্পর্ক নেই। আওয়ামী লীগের মত বড় দল আর বাংলাদেশে নেই। আওয়ামী লীগের প্রধান শক্তি কর্মী সমর্থক। নেতৃত্বের সমস্যা নেতাদের মধ্যে দেখা যায়, কর্মীদের মধ্যে সমস্যা দেখা যায় না। 

অনুষ্ঠানে সংবর্ধণা পাওয়া প্রবীণ ওই রাজনীতিবিদ অ্যাডভোকেট এ.কে এমডি জোনাব আলী বঙ্গবন্ধুর শেখ মুজিবুর রহমানের অন্যতম সহচর ছিলেন। অংশগ্রহন করেছিলেন মহান মুক্তিযুদ্ধে। ১৯৭৩ সালে প্রথম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে রংপুর-২ (জলঢাকা-কিশোরগঞ্জ) আসন থেকে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন। বর্তমানে তাঁর বয়স হয়েছে ৮৭ বছর। বর্তমানে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের জাতীয় পরিষদের সদস্য হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন। রাজনীতিতে তিনি ১৯৫০ সালে মাধ্যমিকে অধ্যয়নকালে ছাত্রলীগে যোগ দেন। ১৯৫২ সালে কলেজ জীবনে ভাষা আন্দোলনের সক্রিয় ছিলেন। ১৯৬৭ সালে নীলফামারী মহকুমা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক, পরবর্তীতে পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতি, জেলা আওয়ামী লীগের  সহসভাপতি, ১৯৯৯ সালে জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্মআহবায়ক, ২০০৪ থেকে ২০০৬ সাল পর্যন্ত জেলা আওয়ামী লীগের আহবায়কের দায়িত্ব পালন করেন।

অনুষ্ঠানে সম্মাননা পাওয়ার অনুভুতিতে অ্যাডভোকেট এ.কে এমডি জোনাব আলী বলেন, বঙ্গবন্ধুর আদর্শকে ধারণ করে আমি রাজনীতিতে এসেছি। অনেক চড়াই-উত্তরাই পেরিয়ে গেছে রাজনীতিতে। সে আদর্শ থেকে আমার বিচ্যুতি ঘটেনি। আজকে এ অনুষ্টানে যারা উপস্থিত আছেন, তাদেরকে দেখে আমার খুব ভালো লাগছে। তারা সাবাই বঙ্গবন্ধুর আদর্শের মানুষ। 

সভায় সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আবুজার রহমানের সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক ওয়াদুদ রহমানের সঞ্চালনায় অন্যান্যের মধ্যে বক্তৃতা করেন জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি দেওয়ান কামাল আহমেদ, সাধারণ সম্পাদক মমতাজুল হক, সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি আবুল মনছু ফকির, পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতি মসফিকুল ইসলাম রিন্টু প্রমুখ।

সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারন সম্পাদক ওয়াদুদ রহমান জানান, সদর উপজেলার আওয়ামী লীগের ৭১ সদস্য বিশিষ্ট কমিটি ৭ মার্চ অনুমোদীত হয়। এতে উপদেষ্টা রয়েছে ১৫ জন। 

মন্তব্য করুন


Link copied