আর্কাইভ  সোমবার ● ৩ অক্টোবর ২০২২ ● ১৮ আশ্বিন ১৪২৯
আর্কাইভ   সোমবার ● ৩ অক্টোবর ২০২২
 
 
শিরোনাম: পাঁচ দিনের ছুটির কবলে প্রশাসন       এলপিজি গ্যাসের দাম কমল       রংপুর মেডিকেলের উপপরিচালক ও সহকারী পরিচালসহ ৩ কর্মকর্তাকে বদলি       ঘোড়াঘাটের সাবেক ইউএনওকে হত্যাচেষ্টার রায় ৪ অক্টোবর       রংপুরে মাসব্যাপী শিল্প ও বাণিজ্য মেলা উদ্বোধন      

নিপুণকে জয়ী ঘোষণা

শনিবার, ৫ ফেব্রুয়ারি ২০২২, বিকাল ০৬:৪৫

ডেস্ক: শিল্পী সমিতির সাধারন সম্পাদক পদে জয়ী ঘোষণা করা হয়েছে অভিনেত্রি নিপুণ আক্তারকে। বাতিল করা হয়েছে জায়েদ খানের প্রার্থিতা।
শনিবার (৫ ফেব্রুয়ারি) বিকেলে নতুন করে এ ঘোষণা দেন শিল্পী সমিতি নির্বাচনের আপিল বোর্ডের চেয়ারম্যান সোহানুর রহমান সোহান।

এদিকে শিল্পী সমিতির নির্বাচন ঘিরে এদিন দুপুর থেকেই উত্তপ্ত ছিল এফডিসি। শনিবার (৫ ফেব্রুয়ারি) বিকেল ৫টায় আপিল বোর্ড মিটিং ডাকা হয়। সমাজকল্যাণ মন্ত্রণালয়ের নির্দেশে এই মিটিংয়ের দায়িত্ব পালন করেন আপিল বোর্ডের চেয়ারম্যান সোহানুর রহমান সোহান।

মিটিং এ উপস্থিত থাকার কথা ছিল নির্বাচন নিয়ে অভিযোগকারী নিপুণ, অভিযুক্ত জায়েদ খান, চুন্নু, সমিতির নতুন সভাপতি ইলিয়াস কাঞ্চন ও দুই নির্বাচন কমিশনারের। তবে মিটিং এ আসেন নি জায়েদ খান। সময় নিউজকে বিষয়টি নিজেই নিশ্চিত করেছিলেন তিনি। বলেন, ‘না, আমি যাব না। ওনাদের লিগ্যালিটি নেই। আমি কেন যাব?’

এদিকে মিটিং শুরুর দেড় ঘণ্টা আগে থেকেই উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে এফডিসিতে। জায়েদ খানের বিপক্ষে চলে বিক্ষোভ। মিশা-জায়েদের আমলে ভোটাধিকার হারানো শিল্পীরা বিকেল ৩টা থেকে এফডিসিতে অবস্থান নেয়।

আন্দোলনকারীরা সংবাদমাধ্যমকে বলেন, আমাদের সঙ্গে অন্যায় করেছে জায়েদ। ২০ বছর ধরে এফডিসিতে আছি। প্রায় ১০০টি সিনেমায় কাজ করেছি। আমার মতো শিল্পীকেও সে বঞ্চিত করেছে। আমি ওর বিচার চাই।

এদিকে মিটিংয়ের এক ঘণ্টা আগেও খবর পাওয়া যায় শিল্পী সমিতির কার্যালয় তালা মারা। দুজন পিয়নের কাউকে পাওয়া যাচ্ছে না।

গত ২৮ জানুয়ারি অনুষ্ঠিত হয় বাংলাদেশ চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির নির্বাচন। নির্বাচনে জয়ী হয়েছিলেন ইলিয়াস কাঞ্চন। আর সাধারণ সম্পাদক পদে জয়ী হন জায়েদ খান।

তবে নির্বাচনের ফলাফল শুরু থেকেই গ্রহণ করেননি জায়েদ খানের প্রতিদ্বন্দ্বি নিপুণ। শিল্পী সমিতির নির্বাচন নিয়ে ভয়ংকর অভিযোগ জানিয়েছেন নিপুণ। শুক্রবার (৪ ফেব্রুয়ারি) গণমাধ্যমে সাক্ষাতকারে নতুন করে আবার আপিল বোর্ডে অভিযোগের বিষয় তুলে আনেন ‘সাজঘর’র এই নায়িকা।

নিপুণ বলেন, আমি নির্বাচনের পরের দিন স্বাক্ষর করেছিলাম একটা বিষয়ের ওপর ভিত্তি করে এটা ঠিক আছে। এরপর সংবাদ সম্মেলন করিনি। কিন্তু তার আগে তার বেশকিছু অভিযোগ নির্বাচন কমিশনের আপিল বোর্ডের চেয়ারম্যানকে লিখিত অভিযোগ করেছিলাম। কিন্তু সেসব অভিযোগ নিয়ে কিছুই করেননি তারা। তাই পুনরায় আপিল বোর্ডে অভিযোগ করেছি। কিন্তু যে অভিযোগ করেছি তা কেউ জানে না। গণমাধ্যমেও অভিযোগের বিষয় জানাননি নিপুণ। এ অভিযোগের বিষয় আপিল বোর্ড ও সমাজকল্যাণ মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী ও সচিব জানেন।

এ বিষয়ে নিপুণ বলেন, বেশ কয়েকটি অভিযোগ করেছি। আশা করছি সেই অভিযোগগুলোর সুষ্ঠু বিচার পাব। আপাতত আমি শনিবারের (০৫ ফেব্রুয়ারি) অপেক্ষায় আছি। দেখি তারা কী সিদ্ধান্ত নেয়। নিপুণ যোগ করেন, কাল বোর্ড যে সিদ্ধান্ত নেবে সেই সিদ্ধান্ত তার পক্ষে বা বিপক্ষে আসলে তা তিনি মেনে নেবেন।

বাংলাদেশ শিল্পী সমিতির নির্বাচন শেষ হয়েছে ২৮ জানুয়ারি। নির্বাচনের এক সপ্তাহ পার হলেও এখনো নির্বাচন নিয়ে থামছে না বিতর্ক। শিল্পী সমিতির নির্বাচিত সাধারণ সম্পাদক জায়েদ খান ও কার্যকরী সদস্য চুন্নুর প্রার্থিতা স্থগিত চেয়ে আপিল বোর্ডের চেয়ারম্যান সোহানুর রহমান সোহানের কাছে লিখিত অভিযোগ করেছিলেন নিপুণ। সেই অভিযোগ আমলে নিয়ে শিল্পী সমিতির নবনির্বাচিত সাধারণ সম্পাদক জায়েদ খান ও  চুন্নুর প্রার্থিতা বাতিলে দিক-নির্দেশনার চিঠি সমাজ কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী ও সচিবের কাছে পাঠিয়েছিলেন সোহান।

মন্তব্য করুন


Link copied