আর্কাইভ  বৃহস্পতিবার ● ২ ফেব্রুয়ারি ২০২৩ ● ২০ মাঘ ১৪২৯
আর্কাইভ   বৃহস্পতিবার ● ২ ফেব্রুয়ারি ২০২৩
 width=
 width=
ব্রেকিং নিউজ
শিরোনাম: স্বামীর মোটরসাইকেল থেকে পড়ে স্ত্রী নিহত       ঠাকুরগাঁওয়ে উপ-নির্বাচনে এমপি হলেন লাঙ্গলের হাফিজ       ৯৫১ ভোটে হেরে গেলেন হিরো আলম       বেরোবিতে গত কয়েক বছরে গবেষণা বেড়েছে পাঁচ গুণ       হাতিবান্ধা উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যানের মাদকগ্রহনের ঘটনায় তদন্ত শুরু      
 width=

যেসব বিষয়ে কৈফিয়ত দিতে আপনি বাধ্য নন

রবিবার, ৪ সেপ্টেম্বর ২০২২, রাত ১১:০৭

আপনার পছন্দ আপনার নিজস্বতা। সুতরাং নিজস্ব পছন্দ নিয়ে কারো কাছে ব্যাখ্যা নয় বরং আত্মবিশ্বাসী হয়ে এগিয়ে চলা উচিত। চলুন জেনে নেওয়া যাক এমন কিছু বিষয়ের কথা যেগুলো নিয়ে আপনি কারো কাছে কৈফিয়ত দিতে বাধ্য নন। 

ধর্মীয় এবং রাজনৈতিক আদর্শ

আপনার সম্পর্কের জন্য

সম্পর্কের নিয়ন্ত্রণ সব সময় নিজের হাতে রাখুন। কোন সম্পর্ক আপনাকে সুখী করবে, কোথায় আপনি অসুখী হবেন সে সিদ্ধান্ত নেওয়ার অধিকার একান্ত আপনার এ বিষয়ে সিদ্ধান্ত নিতে বন্ধুদের ওপর বা অন্য কারো ওপর নির্ভরশীল হলে চলবে না। কারণ, আপনি মানুষটাকে যা দেখে পছন্দ করেছেন তারা হয়তো সেটা নাও দেখতে পারে। তাই সম্পর্কের বেলায় নিজের সিদ্ধান্তকে গুরুত্ব দিন। আপনি স্বাধীন, স্বনির্ভর। হয়তো আপনি আপাতত একা থাকতেই স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করছেন কিংবা মনের মতো কাউকে খুঁজেই পাননি এখনো। আপনি কেন একা, বয়স হয়ে যাচ্ছে- এসব প্রশ্ন হয়তো শুনতে হয় পরিবার বা বন্ধুদের কাছ থেকে। কিন্তু আপনি কিসে সুখী, কেন সম্পর্কে জড়াচ্ছেন না, এ সিদ্ধান্ত শুধুই আপনার। এসব ব্যাপারে কাউকে জবাব দেওয়ার জন্য আপনি মোটেই বাধ্য নন।

আপনি যদি মন থেকে অনুতপ্ত বোধ না করেন তাহলে কাউকে স্যরি বলার কোনো মানে নেই। বন্ধুদের মধ্যে হয়তো এমন একজন আছে যে সব সময় ভাবে সে নিজেই সঠিক এবং চাওয়া হোক বা না হোক সব বিষয়েই সে নিজের মত জাহির করতে উদগ্রীব থাকে। তবে সবসময় তার মতের সঙ্গে একমত না হওয়ার অধিকার আপনার অবশ্যই আছে। যে কোনো বিষয়ে নিজের মতামত জানাতে কখনো দ্বিধা করবেন না।

বেশভূষার জন্য

স্বাচ্ছন্দ্যবোধ হয় এমন পোশাক পরুন। যে মেকআপে ভালো লাগে সেভাবে সাজুন। নিজের ওজন নিয়ে চিন্তামুক্ত থাকুন। আপনি দেখতে কেমন সেটা একান্তই আপনার ব্যক্তিগত বিষয়। আপনি এ নিয়ে অন্যদের কখনও ব্যাখা দেবেন না। আপনার নিজের সম্পূর্ণ অনন্য এক অবয়ব নিয়ে গর্ব করতে পারেন। 

ক্যারিয়ার নিয়ে

আপনি যদি আপনার স্বপ্নের চাকরি পেয়ে থাকেন, তাহলে ভালো। যদি না পেয়ে থাকেন, তাহলে আপনাকে কোনো প্রফেশনে ঢোকার আগে সেটা নিয়ে ভালোভাবে চিন্তাভাবনা করতে হবে। সব কিছু ভেবে তারপর কোনো একটা প্রফেশনে ঢুকবেন। হতে পারে আপনি অনেক টাকা আয় করেন না, কিন্তু নিজের কাজ নিয়ে আপনি খুশি। অথবা আপনি আপনার কাজে বোর ফিল করেন কিন্তু স্যালারিতে আপনার পরিবার বেশ ভালো আছে। তবে ঘটনা যেটাই হোক অন্য কারো কথায় নিজের পেশা পরিবর্তন করবেন না। এ নিয়ে কাউকে জবাবদিহি করতে আপনি বাধ্য নন।

আর্থিক অবস্থার জন্য

হতে পারে আপনার ব্যাংক ব্যালেন্স বেশ ভালো অথবা আপনি সঞ্চয় ছাড়াই দিনযাপন করছেন। কিন্তু এটা নিয়ে আপনাকে কেউ জেরা করার অধিকার রাখে না, আর আপনিও কাউকে এসব ব্যাপারে জানাতে বাধ্য নন। একজন মানুষের মূল্য তার অর্জিত টাকার চেয়ে অনেক বেশি। নিজের আর্থিক অবস্থা নিয়ে তাই কখনো হীনমন্যতায় ভুগবেন না।

জীবনের লক্ষ্য নিয়ে

লক্ষ্যগুলো হতে পারে আপনার জীবনের লক্ষ্য অথবা ব্যক্তিগত লক্ষ্য। এ লক্ষ্যগুলোই বেঁচে থাকার শক্তি যোগায় এবং স্বপ্নগুলো সত্যি করার জন্যই আপনি দিনরাত পরিশ্রম করেন। আপনার জীবনের লক্ষ্য নিয়ে যাদের সমস্যা, তাদের হয়তো জীবনে কোনো লক্ষ্যই নেই। আপনার আর আপনার স্বপ্নগুলোর মাঝে কাউকেই আসতে দেবেন না।

তথ্যসূত্র : রিডার্স ডাইজেস্ট

মন্তব্য করুন


Link copied