আর্কাইভ  মঙ্গলবার ● ৫ জুলাই ২০২২ ● ২১ আষাঢ় ১৪২৯
আর্কাইভ   মঙ্গলবার ● ৫ জুলাই ২০২২
PMBA
PMBA

ডিমলায় পরিবার পরিকল্পনা পরিদর্শিকার স্বামীর বিরুদ্ধে দুই নারী কর্মীর শ্লীলতাহানীর অভিযোগ

বৃহস্পতিবার, ১৯ মে ২০২২, বিকাল ০৭:২৩

স্টাফ রিপোর্টার(নীলফামারী)॥ স্ত্রীর অফিসের মাঠকর্মী ও পরিছন্নকর্মী দুই নারীর শ্লীলতাহানী ঘটিয়েছে স্বামী। এ ঘটনায় বৃহস্পতিবার(১৯ মে) নীলফামারী ডিমলা উপজেলা পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা বরাবরে লিখিত অভিযোগ দিয়েছে ওই নারী কর্মীরা।

অভিযোগে জানা যায়, উপজেলার নাউতারা ইউনিয়নের  পরিবার পরিকল্পনা পরিদর্শিকা রিনা বেগমের স্বামী আব্দুল গাফ্ফার লেবু স্ত্রীর অফিসের সব সময় আড্ডা দেয়। বুধবার(১৮ মে) সকাল ১১টায় উক্ত দুই নারী কর্মীর শ্লীলতাহানী ঘটনায়। বিষয়টি তারা প্রথমে পরিবার কল্যান পরিদর্শিকা রিনা বেগমকে অবগত করলে উল্টো তাদের গালমন্দ করা হয়। ওই নারী দুইজন জানায় বিষয়টি পরিবার পরিকল্যান বিভাগে লিখিতভাবে অভিযোগ করা হয়েছে। থানায় মামলা করলে চাকুরী থাকবে না এমন হুমকির কারনে তারা থানায় মামলা করতে সাহস পাচ্ছে না।

অভিযোগ দেয়ার কারনে পরিবার কল্যান পরিদর্শিকা রিনা বেগম ও তার স্বামীর হুমকির কারনে তিন মাঠকর্মী চরম নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছে। লেবু সরকারী চাকুরী না করলে প্রতিনিয়ত উক্ত কেন্দ্রে সরকারী ঔষধ বিতরনসহ সকল কাজে যুক্ত থাকেন। উক্ত কেন্দ্র সেবা নিতে আসা অনেক নারীও লেবু মিয়ার কুপ্রস্তাবের শিকারের হন।

এ ব্যাপারে মুঠোফোনে  রিনা বেগমের স্বামী আব্দুল গাফ্ফার লেবুর সাথে কথা বলা হলে তিনি তার বিরুদ্ধে আনিত অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, ঘটনার দিন আমার মিসেস অসুস্থ্য থাকায় স্টোর রুমে পরিচ্ছন্নতা কর্মী ছাবিনাকে নিয়ে ঔষধ আনার জন্য রুমে যাই। তার সাথে শ্লীলতাহানীর কোন ঘটনা ঘটেনি। এ সময় আমার স্ত্রী পাশের রুমে ছিলেন। অপর এক নারী কর্মীর সাথে ভাল সর্ম্পক রয়েছে। তাকেও শ্লীলতাহানী করিনি।

ডিমলা উপজেলা পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা হাসিন আকন্দ বলেন, নারীকর্মীদের শ্লীলতাহানীর অভিযোগ পেয়েছি। বিষয়টি তদন্ত করে বিধি মেতাবেক ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।

নীলফামারীর পরিবার পরিকল্পনা অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক মোজাম্মেল হক বলেন, বিষয়টি জানার পর উপজেলা কর্মকর্তাকে দ্রুত তদন্ত করে প্রতিবেদন দাখিলের নির্দেশ দেয়া হয়েছে। ঘটনাটির সত্যতা পাওয়া গেলে  বিভাগীয় ভাবে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে। 

মন্তব্য করুন


Link copied