আর্কাইভ  সোমবার ● ২৯ নভেম্বর ২০২১ ● ১৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৮
আর্কাইভ   সোমবার ● ২৯ নভেম্বর ২০২১

নৌকার স্লোগানে মুখরিত তেঁতুলিয়া, স্বতন্ত্র হিসেবে ছুটছে বিএনপি

রবিবার, ১৭ অক্টোবর ২০২১, সকাল ০৮:২৬

ডিজার হোসেন বাদশা, পঞ্চগড় প্রতিনিধি: আগামী ১১ নভেম্বর দ্বিতীয় ধাপে দেশের ৮৪৮টি ইউনিয়ন পরিষদ (ইউপি) নির্বাচন অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে। আর এই নির্বাচনকে ঘিরে গত ৭ অক্টোবর (বৃহস্পতিবার) বাংলাদেশ আওয়ামীলীগ সংসদীয় ও স্থানীয় সরকার জনপ্রতিনিধি মনোনয়ন বোর্ডের যৌথ সভায় আওয়ামীলীগ ইউপি নির্বাচনে মনোনিত প্রাথীদের নাম ঘোষণা করেন। এ ঘোষণায় দেশের সর্ব উত্তরের জেলা পঞ্চগড়ের তেঁতুলিয়া উপজেলার ৭ ইউনিয়নের নৌকার মাঝি হিসেবে বাংলাবান্ধায় মাহাবুবুল আলম, তিরনই হাটে দানিয়েল হোসাইন, তেঁতুলিয়ায় মাসুদ করিম সিদ্দিকি, শালবাহানে আশরাফুল ইসলাম, বুড়াবুড়িতে শেখ কামাল, ভজনপুরে হারুন অর রশিদ ও দেবনগড় ইউনিয়নে আবু কালাম আজাদ ডাবলুর নাম ঘোষণা করেন মনোনয়ন বোর্ড। ঘোষণার পর থেকে নৌকার স্লোগানে মুখরিত হয়ে উঠেছে পুরো উপজেলা। এদিকে সরাসরি ভাবে নির্বাচনে ধানের শীষ প্রতীকে অংশ না নিলেও নির্বাচনে অংশ নিতে স্বতন্ত্র হিসেবে ছুটছে বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল বিএনপি। ইতিমধ্যে বিএনপির পক্ষে থেকে চেয়ারম্যান পদে স্বতন্ত্র ভাবে মনোনয়ন পত্র রিটার্নিং কর্মকর্তার হাতে জমা দিয়েছে অনেকেই।

এদিকে আওয়ামীলীগের প্রতীকে প্রার্থীতা ঘোষণার পর থেকে উত্তরের সীমান্তের এই জনপদে আওয়ামীলীগ প্রার্থী ও কর্মীদের মাঝে বইছে নির্বাচনী হাওয়া। জয়ী হতে প্রতিটি ইউনিয়নের অলি-গলিতে নৌকার পক্ষে চলছে প্রচারণা। এদিকে মোটরসাইলেক নিয়েও আওয়ামীলীগ কর্মী, অঙ্গ-সংগঠনের নেতাকর্মী ও সমর্থকদের প্রচারণা, কর্মী সভা, উঠান বৈঠকসহ রোড শো করতে দেখা গেছে।

সরেজমিনে উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়ন ঘুরে দেখা গেছে নৌকার প্রচারণা মুখরিত মহাসড়ক থেকে মেঠোপথ। তবে এবারের ইউপি নির্বাচনে নতুনদের প্রতিক দেয়ায় কিছুটা অসুস্তুষ্ঠি থাকতে দেখা গেছে আওয়ামী দলীয় পুরাতন নেতা ও নৌকা প্রত্যাশিদের। তারা বলছেন, প্রতীক না পেলেও জনগণের ভালোবাসায় বিদ্রহী হয়ে স্বতন্ত্র ভাবে ভোটে লোড়বেন। প্রত্যেক ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থীরাও গণসংযোগ শুরু করেছে । এদিকে কে চেয়ারম্যান হবে তা নিয়ে তৃণমূলে চায়ের দোকান, পানের দোকানসহ হাট-বাজারে প্রতিনিয়ত চলছে আলোচনা। ভোটাররা বলছে, যে উন্নয়নসহ সকলের বিপদ আপনদে কিছু করতে না পারলেও পাশা থাকবে সেই রকমই প্রার্থীকে ভোট দেবে তারা।

তেঁতুলিয়া উপজেলার ভজনপুর ইউনিয়নের নৌকার মাঝি (মনোনিত) হারুন অর রশিদ লিটন বলেন, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী দেশনেন্ত্রী শেখ হাসিনা বঙ্গবন্ধুর আদর্শকে বুকে ধারণ করে দেশের জন্য কাজ করে যাচ্ছে। সেই আদর্শ বাস্তবায়নে ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের কর্মীরা আমরা কাজ করে যাচ্ছি। এবারের দ্বিতীয় ধাপের অনুষ্ঠিত ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে প্রধানমন্ত্রী নৌকা প্রার্থী হিসেবে আমাকে নির্বাচীত করেছেন। পুরো দমে চেষ্টা করবো বঙ্গবন্ধুর আদর্শকে বুকে ধারণ করে সহকর্মীদের নিয়ে কাজ করার। ইনশাআল্লাহ জয় আমাদের-ই হবে, আওয়ামীলীগের হবে নৌকার পক্ষে হবে।

শালবাহানা ইউনিয়নের নৌকার মাঝি (মনোনিত) আশরাফুল ইসলাম বলেন, ইতিমধ্যে ব্যাপক সাড়া পেয়েছি। আমার ইউনিয়নের সাধারণ মানুষের পাশে সব সময় থাকার চেষ্টা করেছি। ইনশাআল্লাহ তারা আমার পাশে থেকে নৌকাকে জয় যুক্ত করবে।

চেয়ারম্যান পদে স্বতন্ত্রভাবে মাঠে নামা আওয়ামী লীগের বিদ্রহী প্রার্থীরা বলছেন, আওয়ামীলীগ সরকার তাদের নৌকা প্রতীক মনোনীত প্রার্থীদের দিয়েছেন। এদিকে এলাকাবাসী আমাদের চেয়ারম্যান হিসেবে দেখতে চাওয়ায় দল পদ নির্বিশেষে স্বতন্ত্রভাবে চেয়ারম্যান পদে মাঠে নামছি। তবে তারা অভিযোগ করে বলেন, প্রার্থী নির্বাচনে পুরোনো এবং ত্যাগী নেতা কর্মীদের মূল্যায়ন করা হয়নি। চেয়ারম্যান প্রার্থী নির্বাচনে তৃণমূলের নেতাকর্মীদের মূল্যায়ন করা হয়নি।

তেঁতুলিয়া উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক কাজী মাহমুদুর রহমান ডবলু বলেন, এবারের ইউপি নির্বাচনে চেয়ারম্যান প্রার্থী হিসেবে অপেক্ষাকৃত তরুণদের অগ্রাধিকার দেওয়া হয়েছে।

উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও বীর মুক্তিযোদ্ধা ইয়াছিন আলী মন্ডল বলেন, সরকার তাঁর মনোনীত প্রার্থীকে নৌকা প্রতীকে নির্বাচন করেছেন। আগামী ১১ নভেম্বর ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে জননেত্রী শেখ হাসিনার মনোনীত প্রার্থীকে নৌকা মার্কায় ভোট দেওয়ার জন্য আহ্বান জানানো হয়েছে। অন্যদিকে এই নেতা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম (ফেসবুকে) মন্তব্য করে লিখেছেন, সরকারের এই সিদ্ধান্তকে উপেক্ষা করে যদি কোনো প্রার্থী বিদ্রোহী হিসেবে নির্বাচনে অংশগ্রহণ করে তাকে দল থেকে স্থায়ীভাবে বহিষ্কার করা হবে।

জানা গেছে, দ্বিতীয় ধাপের ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাচনের মনোনয়নপত্র জমা দেওয়ার শেষ তারিখ ১৭ অক্টোবর, মনোনয়নপত্র বাছাই ২০ অক্টোবর, বাছাইয়ের সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে আপিল দায়ের ২১ থেকে ২৩ অক্টোবর, আপিল নিষ্পত্তি ২৪ ও ২৫ অক্টোবর। প্রার্থিতা প্রত্যাহার ২৬ অক্টোবর, প্রতীক বরাদ্দ ২৭ অক্টোবর এবং ভোটগ্রহণ করা হবে ১১ নভেম্বর।

এদিকে গত বৃহস্পতিবার (১৪ অক্টোবর) ইউপি নির্বাচনের তৃতীয় ধাপের তফসিল ঘোষণা করা হয়েছে। একই দিনে পঞ্চগড় সদর ও আটোয়ারী উপজেলায় ভোগ অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে। জানা গেছে, তৃতীয় ধাপের নির্বাচনে মনোনয়ন দাখিল ২ নভেম্বর, বাছাই ৪ নভেম্বর, প্রত্যাহারের শেষ তারিখ ১১ নভেম্বর এবং ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে ২৮ নভেম্বর। পঞ্চগড়ের আটোয়ারী ও সদরের ১৫ টি ইউনিয়নের শুধু রাধানগড় ইউনিয়নে ইভিএমে ভোট হবে।

মন্তব্য করুন


Link copied