আর্কাইভ  বুধবার ● ৩০ নভেম্বর ২০২২ ● ১৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৯
আর্কাইভ   বুধবার ● ৩০ নভেম্বর ২০২২
 width=

 

রংপুর সিটি নির্বাচন: ১০ মেয়র প্রার্থীর মনোনয়ন দাখিল 

রংপুর সিটি নির্বাচন: ১০ মেয়র প্রার্থীর মনোনয়ন দাখিল 

রংপুরের মানুষ নৌকা মার্কায় ভোট দিতে উদগ্রীব হয়ে আছে - ডালিয়া 

রংপুরের মানুষ নৌকা মার্কায় ভোট দিতে উদগ্রীব হয়ে আছে - ডালিয়া 

রংপুর সিটি নির্বাচন: মনোনয়ন জমা দিল জাপার মোস্তফা

রংপুর সিটি নির্বাচন: মনোনয়ন জমা দিল জাপার মোস্তফা

রংপুর সিটি নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়ালেন জামায়াত নেতা বেলাল

রংপুর সিটি নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়ালেন জামায়াত নেতা বেলাল

 width=
শিরোনাম: হাতীবান্ধায় ট্রেনের ধাক্কায় ইউএনও অফিসের নৈশ প্রহরী নিহত       রংপুর সিটি নির্বাচন: ১০ মেয়র প্রার্থীর মনোনয়ন দাখিল        রংপুরের মানুষ নৌকা মার্কায় ভোট দিতে উদগ্রীব হয়ে আছে - ডালিয়া        বিভেদ ভুলে এক টেবিলে রওশন-কাদের       রংপুর সিটি নির্বাচন: মনোনয়ন জমা দিল জাপার মোস্তফা      
 width=

পাচার হওয়া অর্থ ফেরাতে সুবিধা দেওয়া অনৈতিক : সিপিডি

শুক্রবার, ১০ জুন ২০২২, দুপুর ০৩:৫০

ডেস্ক: বাজেটে বিদেশে পাচার করা অর্থ ফিরিয়ে আনতে সুবিধা দেওয়ার যে উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে তা অনৈতিক বলে মনে করছে বেসরকারি উন্নয়ন গবেষণা সংস্থা সেন্টার ফর পলিসি ডায়ালগ (সিপিডি)। সংস্থাটি বলছে, বিদেশ থেকে অর্থ আনার বিষয়টি সম্পূর্ণ অনৈতিক। আর একটি বিষয় হচ্ছে, এটা কখনই বাস্তবায়নযোগ্য নয়। তার চেয়ে বড় কথা হলো, এটা অনৈতিক।

আজ শুক্রবার রাজধানীর গুলশানের লেকশোর হোটেলে ‘জাতীয় বাজেট ২০২২-২৩ এবং সিপিডির পর্যালোচনা’ শীর্ষক মিডিয়া ব্রিফিংয়ে এ কথা বলেন সংস্থাটির নির্বাহী পরিচালক ড. ফাহমিদা খাতুন।

তিনি বলেন, একদিকে অর্থপাচারের সুযোগ দিয়ে আবার অর্থ ফিরিয়ে আনার সুযোগ করে দেব; অন্যদিকে দরিদ্র জনগোষ্ঠীর জন্য করছাড় থাকবে না। সেটা সামাজিক ন্যায় বিচারের জন্য গ্রহণযোগ্য নয়। নিত্যপণ্যের দাম কমাতে বাজেটে পর্যাপ্ত পদক্ষেপ নেই বলেও উল্লেখ করেন তিনি।

সংস্থাটির মতে, ২০২২-২৩ অর্থবছরের প্রস্তাবিত বাজেটে চাল, ডালসহ ২৯টি নিত্যপণ্যের দাম কমানোর দরকার ছিল। কিন্তু তা করা হয়নি। সিপিডির পক্ষ থেকে নিত্যপণ্যের দাম কমাতে কর কমানোর সুপারিশ করা হয়েছিল। কিন্তু সেটিও রাখা হয়নি।

সিপিডির সম্মানীয় ফেলো ড. মোস্তাফিজুর রহমান, গবেষণা পরিচালক ড. খন্দকার গোলাম মোয়াজ্জেম এবং সিনিয়র রিসার্চ ফেলো তৌফিকুল ইসলাম খান এ সময় উপস্থিত ছিলেন।

ড. ফাহমিদা খাতুন বলেন, বর্তমানে মূল্যস্ফীতি রয়েছে ৬ দশমিক ২৯ শতাংশ। এ অবস্থায় প্রস্তাবিত বাজেটে মূল্যস্ফীতির লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয় ৫ দশমিক ৬ শতাংশ। আগামী এক বছরে মূল্যস্ফীতি কীভাবে কমবে? কারণ, পৃথিবীর অনেক দেশ অর্থনৈতিক মন্দায় চলে যাবে। তাহলে কীভাবে মূল্যস্ফীতি কমবে, এটাই বড় প্রশ্ন।

তিনি বলেন, বর্তমানে জনজীবনের ওপর চাপ রয়েছে। বাজেটে প্রত্যাশা ছিল নিম্ন ও মধ্য আয়ের মানুষকে স্বস্তি দেওয়া হবে, কিন্তু দেওয়া হয়নি। উল্টো বিত্তবানদের কর কমানো হয়েছে।

মন্তব্য করুন


Link copied