আর্কাইভ  মঙ্গলবার ● ৪ অক্টোবর ২০২২ ● ১৯ আশ্বিন ১৪২৯
আর্কাইভ   মঙ্গলবার ● ৪ অক্টোবর ২০২২
 
 
শিরোনাম: মাইক্রোবাস নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে সেতুর রেলিংয়ে ধাক্কা, নিহত ৪       এইচএসসি পরীক্ষা নিয়ে শিক্ষামন্ত্রীর কঠোর হুঁশিয়ারি       দিনাজপুরে ইউএনও হত্যা চেষ্টা  স্পর্শকাতর মামলার রায় পিছিয়ে গেলো       নানার বাড়ি বেড়াতে এসে প্রাণ গেল অপূর্বের       রংপুরে সড়ক দুর্ঘটনায় ২ জন নিহত      

নারী মুক্তি ও অগ্রগতির প্রেরণা: আমাদের মহীয়সী নারী রোকেয়া

বৃহস্পতিবার, ৯ ডিসেম্বর ২০২১, দুপুর ১০:৩০

শেখ মাজেদুল হক

বাংলার প্রথম মুসলিম নারী জাগরণের অগ্রদূত রোকেয়া সাখাওয়াত হোসেন একটি কিংবদন্তি মহীয়সী নারীর নাম। একটি আধুনিক, উদার ও বৈজ্ঞানিক দৃষ্টিভঙ্গি নিয়ে তিনি কল্পনা করেছিলেন যে শিক্ষার মাধ্যমে নারীরা, বিশেষ করে মুসলিম নারীরা, মানুষ হিসেবে তাদের পূর্ণ সম্ভাবনায় পৌঁছাবে এবং পুরুষের উপর নির্ভর না করে তাদের নিজস্ব স্বার্থ অনুসরণ করবে। তার জীবদ্দশায় বা তার আগে, কিছু ব্যক্তি মুসলিম নারীদের শিক্ষিত করার উদ্যোগ নিলেও, বাঙালি মুসলিম সমাজে, রোকেয়াই প্রথম যিনি শিক্ষার প্রসারকে নারীর মুক্তি ও অগ্রগতির সাথে যুক্ত করেন। তার প্রধান লক্ষ্য ছিল নারীমুক্তি। বাঙালি মুসলিম সমাজে নারী শিক্ষার প্রসারে তার ছিল অদম্য প্রয়াস। তিনি বিশ্বাস করতেন নারী সমাজকে যদি সঠিকভাবে শিক্ষা দেওয়া হয়, তাহলে তা তাদের আলোকিত করবে এবং কঠোর পিতৃতান্ত্রিক ও সমাজের কথিত নিয়মের বেড়াজাল থেকে নিজেদের মুক্ত করবে। রোকেয়ার যুগে নারী শিক্ষার প্রতি তীব্র ভ্রুকুটি সত্বেও তার ভাই ও বোন গোপনে তাকে বাংলা ও ইংরেজি পড়তে ও লিখতে শিখিয়েছিলেন। কখনো স্কুলে যাওয়ার সুযোগ না পেয়ে, রোকেয়ার স্বশিক্ষার অনবদ্য প্রয়াস তার চরিত্রকে ধার দিয়েছিল,আত্নউপলব্ধি বোধ জাগ্রত করেছিল। শৈশবকাল থেকেই তার মনে প্রাণে ছিল স্বাধীনতার স্ফুলিঙ্গ।তাঁর জীবনের তিক্ত অভিজ্ঞতার মধ্য দিয়ে পুরুষ শাসিত সমাজে নারীরা যে সমস্যার সম্মুখীন হয় তা নির্ণয় করেছিলেন।শুধু তাই নয় নারীর ক্ষমতায়নের জন্য এসকল সমস্যা সমাধানে বিভিন্ন  প্রস্তাব দিয়েছেন যা বৈষম্য দূরীকরণে অত্যন্ত কার্যকরী।

 এতক্ষণ যার কথা বললাম বাংলার সেই মহীয়সী নারী বেগম রোকেয়া সাখাওয়াত হোসেন যার নেতৃত্বে এই অঞ্চল এবং এর বাইরের হাজার হাজার নারীর জীবন বদলে গিয়েছিল,তিনি ১৮৮০ সালের আজকের এই দিনে জন্মগ্রহণ করেন। প্রসঙ্গত, ৫২ বছর পর একই দিনে তিনি মারা যান।নতুন প্রজন্মের অনেকেই হয়তো জানেন না, বেগম রোকেয়া ব্রিটিশ শাসনামলে ভারতীয় উপমহাদেশে নারী অধিকারের একজন প্রবক্তা ছিলেন। তার ক্যারিশম্যাটিক এবং স্থিতিস্থাপক নেতৃত্বের মাধ্যমে, একটি ঘুণে ধরা জরাজীর্ণ সমাজকে আলোর পথ দেখিয়েছিলেন যার সুফল আজকের নারী সমাজ পাচ্ছে।

তার লেখনীর মাধ্যমে জীবনের প্রতিটি মুহূর্তে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে তৎকালীন রক্ষণশীল সমাজের বিরুদ্ধে আওয়াজ তুলেছিলেন এবং বাঙালি মুসলিম নারীদের মুক্তির জন্য এমন এক সময়ে স্বপ্ন দেখেছিলেন যখন অন্য কারো পক্ষে এটি ভাবাই অসম্ভব ছিল। তিনি সমাজের চোখে আঙ্গুল দিয়ে দেখিয়ে দিয়েছেন কিভাবে অতি রক্ষণশীল সমাজের পুরুষতান্ত্রিক মানসিকতা নারীদেরকে দরজার আড়ালে রাখে এবং তাদের অধিকার থেকে বঞ্চিত করে।

বেগম রোকেয়া বর্তমান রংপুর জেলার মিঠাপুকুর উপজেলার পায়রাবন্দ নামক গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন।রোকেয়া এবং তার বড় বোন করিমুন্নেসা বাংলা ও ইংরেজি শেখার প্রতি গভীরভাবে আগ্রহী ছিলেন। তাদের বড় ভাই ইব্রাহিম, যিনি তাদের জীবনে অনেক প্রভাব ফেলেছিলেন, তাদেরকে ভাষা শিখিয়েছিলেন। তারা রাতে এটি করেছিল, যখন অন্য সবাই ঘুমিয়ে ছিল, যাতে কারও সন্দেহ না হয়। তিনি বিয়ে করেছিলেন এবং ভাগলপুরের তৎকালীন ডেপুটি ম্যাজিস্ট্রেট খান বাহাদুর সাখাওয়াত হোসেনকে। সৌভাগ্যক্রমে তার স্বামী নারী শিক্ষাকে সমর্থন করেছিলেন এবং তাকে বাংলা ও ইংরেজি দক্ষতা উন্নত করতে সাহায্য করেছিলেন। ধীরে ধীরে, তিনি দুটি ভাষা আয়ত্ত করেন। তার স্বামীও তাকে লেখার জন্য উৎসাহিত করেন এবং রোকেয়া শেষ পর্যন্ত বাংলাকে তার লেখার মূল ভাষা হিসেবে গ্রহণ করেন।

রোকেয়ার লেখা মূলত নারী নিপীড়নকে ঘিরেই আবর্তিত হয়। তার কাজের মধ্যে উল্লেখযোগ্য হল সুলতানার স্বপ্ন (সুলতানার স্বপ্ন), পদ্মরাগ এবং অবরোধবাসিনী। এছাড়া তিনি আরও বেশ কিছু উপন্যাস ও ছোটগল্প লিখেছেন।

তিনি সবসময় বিশ্বাস করতেন যে নারীরা তাদের নিজেদের অধিকার ও দায়িত্ব সম্পর্কে অজ্ঞতার কারণে পিছিয়ে পড়ে। 1909 সালে, তিনি তার স্বামী মারা যাওয়ার পরপরই সাখাওয়াত মেমোরিয়াল গার্লস স্কুল স্থাপন করেন, এই অঞ্চলের মুসলিম মহিলাদের জন্য প্রথম স্কুল, যেখানে পাঁচজন ছাত্রী ছিল। তিনি দ্বারে দ্বারে গিয়েছিলেন, মুসলিম পরিবারগুলিকে তাদের মেয়েদের স্কুলে যাওয়ার অনুমতি দেওয়ার জন্য রাজি করার চেষ্টা করেছিলেন। তিনি কলকাতায় একটি বস্তির সাহিত্য অনুষ্ঠান পরিচালনা করেছিলেন, বস্তির মহিলাদের পড়া, লেখা, ব্যক্তিগত স্বাস্থ্যবিধি এবং শিশু যত্ন শেখানোর জন্য কাজের দল গঠন করেছিলেন।

বেগম রোকেয়া ছিলেন একজন প্রগতিশীল মানসিকতার স্বশিক্ষিত ও স্বাবলম্বী নারী। তার লেখা ও কাজের মাধ্যমে, তিনি নারীদেরকে তাদের অধিকার,দাবী আদায় এবং একটি উন্নত, ন্যায়সঙ্গত সমাজ গঠনে সাহায্য করার জন্য নিজেদের প্রস্তুত করার বার্তা পাঠিয়েছিলেন। ঔপনিবেশিক বাংলার এক তরুণী মুসলিম নারীর কাছ থেকে এমন বার্তা আসাটা আশ্চর্যজনক। তিনি তার সমাজে প্রথম নারী যিনি লিঙ্গ সমতার কথা বলেছিলেন। তিনি বলেন, "আমরা [নারীরা] সমাজের অর্ধেক, আর আমরা যদি পিছিয়ে থাকি, তাহলে সমাজ কীভাবে এগিয়ে যাবে?" তিনি বুঝতে পেরেছিলেন যে শিক্ষার অভাব এবং নিম্ন স্তরের সাক্ষরতা সুযোগগুলিকে সীমিত করে তোলে এবং সাধারণভাবে জনজীবনে প্রবেশের জন্য প্রয়োজনীয় আস্থাকে ক্ষুণ্ণ করে, তা গ্রাম, সম্প্রদায় বা জাতীয় স্তরে হোক। তিনি তার লেখনীর মাধ্যমে তার আওয়াজ তুলেছেন এবং তাদের মধ্যে নবজাগরণের বোধ জাগিয়ে তুলেছেন।

শেষ দিন পর্যন্ত বেগম রোকেয়া তার লেখনীর মাধ্যমে নারীমুক্তি  ও সমাজসেবা নিয়ে ব্যস্ত ছিলেন।রোকেয়ার কথা ও বাণী আজও আমাদের বর্তমান সময় ও সমাজের সাথে খুবই প্রাসঙ্গিক।এ কথা অনস্বীকার্য যে তিনি এখনও নারী আন্দোলনের এক বিশাল ব্যক্তিত্ব এবং হাজার হাজার নারী সমাজের পথপ্রদর্শক। রোকেয়ার সমাজ পরিবর্তনের স্বপ্ন ও দর্শন বাস্তবায়ন করা একান্ত অপরিহার্য। আজ ৯ ডিসেম্বর রোকেয়া দিবসে রোকেয়া সাখাওয়াত হোসেন এর প্রতি সশ্রদ্ধ সালাম।

লেখক: সহযোগী অধ্যাপক, মার্কেটিং বিভাগ, বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়, রংপুর।

মন্তব্য করুন


Link copied