আর্কাইভ  সোমবার ● ৬ ফেব্রুয়ারি ২০২৩ ● ২৪ মাঘ ১৪২৯
আর্কাইভ   সোমবার ● ৬ ফেব্রুয়ারি ২০২৩

শিরোনাম: রংপুরে শিবিরের ৬ নেতা কর্মী গ্রেফতার       রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে দুদকের অভিযান       তুরস্ক ও সিরিয়ায় ভূমিকম্পে নিহত ১২০০ ছাড়াল       ভূমিকম্পে নিহত বেড়ে ৫৬০, তুরস্কে জরুরি অবস্থা ঘোষণা       ভূমিকম্পে তুরস্ক-সিরিয়ায় ৩১৩ জনের মৃত্যু      

নীলফামারীতে দুইদিনের তথ্য মেলার উদ্বোধন করলেন এমপি আসাদুজ্জামান নূর

মঙ্গলবার, ২৯ নভেম্বর ২০২২, বিকাল ০৫:৩২

স্টাফ রিপোর্টার,নীলফামারী॥ ‘তথ্যই শক্তি, জানবো জানাবো, দুর্নীতি রুখবো’ শ্লোগানে নীলফামারীতে শুরু হয়েছে দুই দিনের তথ্য মেলা। জেলা শহরের কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার চত্বরে মঙ্গলবার(২৯ নভেম্বর) বেলা ১২টার দিকে বেলুন উড়িয়ে আয়োজিত মেলার উদ্বোধন করেন নীলফামারী-২ আসনের সংসদ সদস্য আসাদুজ্জামান নূর। 
জেলা প্রশাসন ও সচেতন নাগরিক কমিটির আয়োজনে অনুষ্ঠিত তথ্য মেলায় সরকারি বেসরকারি বিভিন্ন দপ্তরের ৪০টি স্টল অংশগ্রহন করেছে। দুই দিনব্যাপী মেলায় রয়েছে আলোচনা সভা, বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের সেবা সম্পর্কিত অবহিতকরণ ও মতবিনিময়, তথ্য অধিকার বিষয়ক চিত্রাঙ্কন, বিতর্ক প্রতিযোগিতা ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান। মেলায় আগত আগ্রহীদেরকে তথ্য অধিকার আইন ও তথ্য প্রাপ্তির আবেদন প্রক্রিয়া হাতে কলমে শেখানো হচ্ছে। 
অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় সংসদ সদস্য আসাদুজ্জামান নূর বলেন, তথ্য অধিকার আইন প্রণয়ন করার মধ্য দিয়ে আমরা অন্তত এটুকু প্রমান করেছি যে, আমরা একটি সভ্য জাতি। পৃথিবীর সমস্ত সভ্য দেশে এই আইনটি বহাল আছে অনেকদিন ধরেই। সেইসব দেশে এই আইনের চর্চাও আছে।
২০০৯ সালে বঙ্গবন্ধু কন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনা প্রধানমন্ত্রী হওয়ার পর সংসদে তথ্য অধিকার আইন পাশ করেছিলেন উল্লেখ করে তিনি বলেন, যথেষ্ট প্রগতিশীল মানসিকতা না থাকলে এই আইন পাশ হতো না। অনেকে দ্বিধা করেন, আগের সকারগুলো এব্যাপারে অনেক দ্বিধাম্বিত ছিল। কিন্তু মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন জাতীয় জীবনে সর্বক্ষেত্রে স্বচ্ছতা নিশ্চিত করতে হলে, দুর্নীতি কমিয়ে আনতে হলে এবং জবাবদিহিতামূলক প্রতিষ্ঠান গড়ে তুলতে হলে এই অবাধ তথ্য প্রবাহের প্রয়োজনীয়তা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। তিনি আরও বলেন, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী আইনটি করেছেন একটি ইতিবাচক চিন্তা থেকে। কিন্তু সে চিন্তার ফসল আমরা সেইভাবে ঘরে তুলতে পারছি না। এর কারণ হলো আমরা যারা তথ্য পেতে চাই, এই বিষয়টা সম্পর্কে আমরা অনেকে অবগতই নই। যারা জানি তারা আবার অনেকেই কিভাবে তথ্য সংগ্রহ করতে হয় এটি জানি না। আর যারা ওইটুকু জানি তারা মনে করেন যে, এই তথ্য পেলাম ঠিকই কিন্তু এর পরবর্তী পক্ষেপ আমি কি নিতে পারবো। আর যারা তথ্য সরবরাহ করবেন যেসব প্রতিষ্ঠান সেটা সরকারি হোক আর বেসরকারি হোক তাদেরও একটি মানসিক বাধা আছে। কিজানি কেঁচো খুরতে সাপ বেরিয়ে পড়ে, ফলে অনেকে তথ্য দিতে চান না। যাদের দূর্বলতা আছে তারা এই ব্যাপারে খুই অনিহা প্রকাশ করেন। সকলের সহযোগিতায়, সকলের অংশগ্রহনে আইনটি সঠিকভাবে বাস্তবায়িত হতে পারে। কেউ যদি তথ্য না দেন তাহলে তার বিরুদ্ধে আইনসন্মতভাবে ব্যবস্থা গ্রহন করার বিধি আছে। পাশপাশি আমরা যারা জনগণ আছি আমাদের মধ্যেও সে সচেতনতা বাড়ানো দরকার। 
অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) মো. সাইফুর রহমানের সভাপতিত্বে বিশেষ অতিথির বক্তৃতা দেন জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মমতাজুল হক, নীলফামারী পৌরসভার মেয়র দেওয়ান কামাল আহমেদ, সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান শাহিদ মাহমুদ, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা জেসমিন নাহার, টিআইবির সমন্বয়কারী আতিকুর রহমান, সনাক সভাপতি তাহমিনুল হক ববী প্রমুখ। 
অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেন সনাক সদস্য ফারহানা ইয়াসমিন ইমু। 
সনাকের সহসভাপতি ও মেলা আয়োজন কমিটির আহ্বায়ক মিজানুর রহমান লিটু জানান, তথ্য অধিকার আই সম্পর্কে জনসচেতনতা সৃষ্টি এবং জনগণের তথ্য অধিকার সুপ্রতিষ্ঠিত করতে এ মেলার আয়োজন। মেলাটি সমাপ্ত হবে বুধবার(৩০ নভেম্বর) সন্ধ্যায়। 

মন্তব্য করুন


Link copied